• শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০৪:৩৪ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
বেঞ্চ ও বারের সুসম্পর্কের মধ্য দিয়ে বিচার ব্যবস্থা সমৃদ্ধ হয়- নীলফামারীতে প্রধান বিচারপতি সৈয়দপুর বিজ্ঞান কলেজ চত্ত্বর থেকে কিশোরের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার  নীলফামারী শহরে অগ্নিকান্ডে ৫ দোকান পুড়ে ছাই জলঢাকায় মিন্টু, কিশোরগঞ্জে রশিদুল, সৈয়দপুরে রিয়াদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত বিএনপি-জামায়াতের ষড়যন্ত্রের বিষদাত ভেঙে দেওয়া হবে: নানক সৈয়দপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভজে পুত্রের জয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য মাউশির ৯ নির্দেশনা ভোটের আগেই জামিন পেলেন চেয়ারম্যান প্রার্থী ফুলবাড়ীতে ৪৮ রোগী পেল ২৪ লাখ টাকার চিকিৎসা সহায়তার চেক ফুলবাড়ীতে চারটি চোরাই গরু উদ্ধার, গ্রেফতার তিন

জলঢাকায় কালিগঞ্জ গণহত্যা দিবস পালিত

Kaligonj Day Pictureনীলফামারী প্রতিনিধি: জাতীয় পতাকা উত্তলন ও পুষ্পমাল্য অর্পণ এবং আলোচনার মধ্য দিয়ে নীলফামারীর জলয়াকা কালিগঞ্জ গণহত্যা দিবস পালিত হয়েছে।
দিবসটি উপলক্ষে রোববার সকালে জলঢাকা উপজেলা আওয়ামীলীগ ও স্থানীয়দের উদ্যেগে ওই বদ্ধভুমিতে জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও পুস্পমাল্য অর্পণের মধ্য দিয়ে দিনব্যাপী কর্মসূচির শুরু হয়।
সকাল সাড়ে ১০টায় উপজেলা আওয়ামী লীগ ও স্থানীয়দের যৌথ আয়োজনে বদ্ধভূমি প্রধান ফলক চত্তর থেকে একটি শোক র‌্যালী শহর প্রদক্ষিণ শেষে পুনরায় বদ্ধভূমি চত্তরে আলোচনা সভায় মিলিত হয়। এ সময় স্থানীয় অধিবাসী ও শহীদ পরিবারের সদস্যরা এ সব কর্মসুচিতে অংশ নেন।
গোলনা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আইন উদ্দিনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধাণ অতিথি হিসেবে স্থানীয় সংসদ সদস্য অধ্যাপক গোলাম মোস্তফা বক্তব্য রাখেন।
এছাড়াও অন্যান্যের মধ্যে জলঢাকা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আহসান হাবিব, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সহীদ হোসেন রুবেল, সাবেক সভাপতি আব্দুল মান্নান,গোলনা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মশিয়ার রহমান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।
উল্লেখ্য ১৯৭১ সালের ২৭ এপ্রিল নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলার গোলনা ইউনিয়নের এই কালিগঞ্জে পাক হানাদার বাহিনী গুলি করে নৃশংসভাবে হত্যা করেছিল  নিরাপদ আশ্রয় প্রত্যাশী তিন শতাধীক নর-নারীকে। সে দিনের পৈশাচিক সেই বর্বরতা এখনও এখানকার মানুষের হৃদয়ে দগদগে স্মৃতিতে গাঁথা রয়েছে।
রাষ্ট্রীয় ভাবে দিবসটি পালন করা না হলেও  প্রতিবছর স্থানীয় জনগণ ও শহীদ পরিবারের সদস্যরা  দিবসটি পালন করে আসছে। সরকারী অর্থে এখানে একটি শহীদ মিনার ও স্তম্ভ গড়ে উঠলেও রাষ্ট্রিয়ভাবে আসেনি বদ্ধভূ’মির স্বীকৃতি। এখানে হত্যা করা হয়েছিলো ওই উপজেলার সদর ও  উপজেলার কাঠালী, বালাগ্রাম ইউনিয়নের তিন শতাধিক নারী-পুরুষকে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আর্কাইভ