• শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ১১:০৩ অপরাহ্ন |

সৈয়দপুরে ভাইয়ের তিন দিনের মরদেহ পাহারায় দুই বোন

সিসি নিউজ।। বাসার ভেতর থেকে মূল দরজা আটকানো। ওই বাসার একটি কক্ষে গত তিন দিন ধরে পড়ে রয়েছে মরদেহ। ছোট ভাইয়ের এ মরদেহের পাহারায় আছে আপন বড় দুই বোন। আজ শুক্রবার দুপুরে বিষয়টি টের পেয়ে মরদেহটি উদ্ধার করে প্রতিবেশীরা।

ঘটনাটি ঘটেছে নীলফামারীর সৈয়দপুর শহরের পুরাতন বাবুপাড়ায়। মৃত যুবক বখতিয়ার হোসেন (৪০) মহল্লার দারুল উলুম মাদ্রাসা সড়কের মৃত সালামত আলীর ছেলে। তাঁর বাসা সংলগ্ন নিজস্ব একটি লন্ড্রীর দোকান রয়েছে। মৃত বখতিয়ারের সাথে বসবাস করে মানসিক ভারসাম্যহীন তাঁর আপন বড় বোন মাহাতারা আকতার (৪৬) ও রোকসানা বেগম (৪৫)।

প্রতিবেশী মীর ইরফান আলী শিমুল বলেন, তিন দিন থেকে দোকান বন্ধ থাকায় কাপড় লন্ড্রী করতে পারছিলো মহল্লার লোকজন। তাদের মধ্যে এমন একজন আজ শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে দোকান বন্ধ পেয়ে দোকান সংলগ্ন বাসায় ডাকাডাকি করতে গিয়ে বিষয়টি টের পায়। পরে বাসার একটি কক্ষের বিছানায় বখতিয়ারের মরদেহ দেখতে পাওয়া যায়। তিনি বলেন এ সময় মরদেহ থেকে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছিল।

মৃত বখতিয়ারের বড় ভাই এখলাক মিয়া (৫০) শহরের মুন্সিপাড়ায় স্বস্ত্রীক ভাড়া বাসায় থাকেন। তিনি বলেন, ছোট ভাই দীর্ঘদিন থেকে অসুস্থ্য ছিল। মানসিক ভারসাম্যহীণ হওয়ায় তারা মৃতের সংবাদটি কাউকে জানাতে পারেনি। তিনি ভারসাম্যহীণ বোন মাহাতারার উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন, বুধবার কোন এক সময় মারা গেছে।

সৈয়দপুর পৌরসভার ওয়ার্ড কাউন্সিলর বেলাল হোসেন জানান, পুরো পরিবারটি মানসিক রোগে আক্রান্ত। তাঁরা কারো সাথে মেলামেশা করে না। অনাহারে থাকলেও কারো কাছ থেকে কোন কিছু গ্রহণ করে না। অথচ তারা প্রায় ৪ কোটি টাকার সম্পদের মালিক। মৃত বখতিয়ারের দাফন কাজ তাঁরা (দুই বোন) নিজেরাই বাসার পেছনে গর্ত করে করতে চায়।

সৈয়দপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম জানান, পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়েছিল। পরিবারের কোন অভিযোগ না থাকায় দাফন কার্য সম্পাদনের অনুমতি দেয়া হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Comments are closed.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ