• শনিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২৩, ০৩:৩৯ অপরাহ্ন |

এমপির অপেক্ষায় রোদে পুড়ে অসুস্থ অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী

111পিরোজপুর: পিরোজপুর সদরে সংসদ সদস্য একেএমএ আউয়ালের অপেক্ষায় থেকে প্রচ- রোদে অসুস্থ হয়ে পড়েছে অর্ধশতাধিক স্কুল শিক্ষার্থী। বুধবার বেলা ১১টার দিকে সদর উপজেলার করিমুন্নেছা বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মাঠে স্কুলের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পিরোজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য একেএমএ আউয়াল। অনুষ্ঠান উপলক্ষে স্কুল কর্তৃপক্ষ শিক্ষার্থীদেরকে সকাল সাড়ে ৮টার মধ্যে স্কুলে উপস্থিত থাকতে বলেন। যথাসময়ে বিদ্যালয়ে হাজির হয়ে প্রচ- রোদের মধ্যে লাইনে দাঁড়িয়ে শিক্ষার্থীরা অপেক্ষা করতে থাকে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথিকে স্বাগত জানানোর জন্য।

বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এমপি অনুষ্ঠানে উপস্থিত হন। এরপর জাতীয় সংগীত পরিবেশন শুরু হলে প্রথম চার লাইন গাওয়ার পর লাইনে দাঁড়ানো ৫০/৬০ জন শিক্ষার্থী হঠাৎ অজ্ঞান হয়ে পড়েন। পরে দ্রুত তাদেরকে হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী হুমাইরা ইসলাম রাফির বাবা পুলিশ কর্মকর্তা এসআই আবু জাফর আহম্মেদ জানান, তার মেয়ে এক ঘণ্টা অচেতন থাকার পর জ্ঞান ফিরেছে।

অসুস্থ রাফি জানায়, সকাল থেকে রোদে দাঁড়িয়ে ক্লান্ত অবস্থায় একটু পানি চেয়েছিল সে। কিন্তু কর্তৃপক্ষ পানির ব্যবস্থা রাখেনি। এরপর লাইনে দাঁড়ানোর পর বুকে প্রচ- ব্যথা অনুভব হয়। পরে সে অজ্ঞান হয়ে পড়ে।

অভিভাবক নাসির শেখ বলেন, আমার মেয়ে কিছুদিন আগে সড়ক দুর্ঘটনার শিকার হয়েছিল। সেই মেয়েকে আড়াই ঘণ্টা প্রচ- রোদে দাঁড় করিয়ে রাখা হয়েছে।

তিনি সাংবাদিকদের কাছে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, এরা কি মানুষ না কসাই? শিক্ষার্থীদের জীবনের চাইতে কি এমপির সংবর্ধনা বড়?

এদের মধ্যে জান্নাতুল, জেরিন ও আখির অবস্থা গুরুতর। তারা জানায়, তাদের শরীর ও বুক জ্বলছে। তারা শ্বাস নিতে পারছে না।

ষষ্ঠ শ্রেণির অসুস্থ ছাত্রী মাহফুজা ও নুরজাহান জানায়, পানির জন্য হাহাকার করলেও তাদের জন্য পানির ব্যবস্থা করা হয়নি। রোদে দাঁড়িয়ে থেকে তারা অসুস্থ হয়ে পড়েছে।

হাসপাতালে অসুস্থ শিক্ষার্থীদেরকে দেখতে এসে মহিলা পরিষদ সভাপতি মনিকা ম-ল বলেন, মেয়েদের জন্য স্কুল কর্তৃপক্ষ পানির ব্যবস্থা রাখেনি। তাছাড়া অনুষ্ঠান এত দীর্ঘ করার কি দরকার ছিল? হাসপাতালে ভর্তি মেয়েদের সুষ্ঠু চিকিৎসারও দাবি করেন তিনি।

এ ঘটনায় স্কুল কর্তৃপক্ষের সংশ্লিষ্টতা অস্বীকার করেছেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আব্দুল হালিম হাওলাদার।

তিনি সাংবাদিকদের বলেন, মেয়েরা সকালে প্রাইভেট পড়ে খালি পেটে স্কুলে আসার কারণে এ ঘটনা ঘটেছে। পানির ব্যবস্থা না থাকার বিষয়ে তিনি কোনো মন্তব্য করেননি।

পিরোজপুর সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. শংকর কুমার ঘোষ বলেন, গুরুতর অসুস্থ কয়েকজন শিক্ষার্থীকে কৃত্রিম অক্সিজেন দেওয়া হয়েছে।

গণমনস্তাত্বিক (মাস সাইকোজেনিক ইলনেস) রোগের কারণে এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। এধরনের রোগ সাধারণত মেয়েদেরই হয়ে থাকে।

এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অভিভাবকেরা প্রশাসনের কাছে ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের অপসারণ দাবি করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আর্কাইভ