• বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ০৪:৩০ পূর্বাহ্ন |

ভয়ঙ্কর এক সিরিয়াল নারী খুনির কাহিনী

79932_1সিসিনিউজ: বগুড়ার সেই ভয়ঙ্কর সিরিয়াল নারী ধর্ষণ ও পরে তাদের হত্যাকারী মোমিন ওরফে পিচ্চি বাবু ওরফে বাবু মণ্ডলের বিরুদ্ধে দায়ের হত্যা মামলাগুলো পুনর্জীবিত হয়েছে। সাতটি হত্যা মামলার মধ্যে তিনটির ফাইনাল রিপোর্ট প্রদানের পর আবারও নতুন করে মামলার তদন্ত শুরু হয়েছে।
২০০৫ সালে ঢাকার তরমুজ ব্যবসায়ীকে হত্যা ও ৫০ হাজার টাকা লুট করে মাদক ও নারী ব্যবসায়ী পিচ্চি বাবু ২০১০ থেকে ২০১৪ সালের ১৯ এপ্রিল পর্যন্ত সাতজনকে খুন করেন। গ্রেফতারের পর পুলিশের কাছে হত্যা ও ধর্ষণ ঘটনাগুলোর সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেন তিনি। জানা যায়, বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলায় ময়দানহাটা ও তার আশপাশে বেশ কয়েকটি লাশ উদ্ধারের পর পুলিশ তদন্ত শুরু করে। চলতি বছরের ১৯ এপ্রিল ভোরে অজ্ঞাত তরুণের (১৬) লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ঢাকার দক্ষিণখানের নিপা আক্তার নামে এক মহিলা লাশটি তার বোনের ছেলে সুজনের বলে শনাক্ত করেন। সুজন হত্যাকাণ্ডের তদন্ত করতে গিয়ে পুলিশ শিবগঞ্জের নন্দীপুর গ্রামের শামসুল আলমের ছেলে পিচ্চি বাবুর সন্ধান পায়। পরে গোয়েন্দা পুলিশের একটি বিশেষ দল তার কথিত স্ত্রী নিপা আক্তারের সহায়তায় ২২ এপ্রিল ঢাকার দক্ষিণখানের একটি বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করে। এ সময় তার সঙ্গে থাকা কথিত মা, গাজীপুরের জয়দেবপুর উপজেলার বুরুলিয়া গ্রামের দেলোয়ার হোসেনের স্ত্রী পারুলকেও গ্রেফতার করে পুলিশ। গ্রেফতারের পর পুলিশের কাছে কিশোর সুজনকে হত্যার দায় স্বীকার করেন পিচ্চি বাবু এবং তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী ময়দানহাটা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আইনুল হক (৪০), একই এলাকার সারোয়ার (৩৮) ও জলিলকে (৪০) গ্রেফতার করা হয়। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে পিচ্চি বাবু সিরিয়ালভাবে সাত হত্যার বর্ণনা দেন। ২৩ এপ্রিল জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলন করে সেসব তথ্য তুলে ধরা হয়। পিচ্চি বাবু জানান, ২০০৫ সালে তিনি ঢাকার যাত্রাবাড়ী এলাকায় থাকাকালে তরমুজ ব্যবসায়ী সামাদের (৪০) সঙ্গে তার পরিচয়। তরমুজ ব্যবসার সূত্রে সামাদকে নিয়ে ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গায় যান। সেখানে একটি মাঠের মধ্যে ৫০ হাজার টাকা ছিনতাই করে তাকে হত্যার পর লাশ সেপটিক ট্যাঙ্কির মধ্যে ফেলে গুম করে রাখেন। এ ঘটনার পর থেকে তিনি মাদক ব্যবসা, দেহব্যবসা এবং স্বর্ণ চোরাচালানের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন। ২০১০ সালের জুলাইয়ে সোনিয়া (২০) নামে এক তরুণীকে ঢাকা থেকে তার গ্রামের বাড়ি বগুড়ার শিবগঞ্জের মেঘাখদ্দ গ্রামে নিয়ে বন্ধুদেরসহ ফুর্তি করেন। পর দিন শিবগঞ্জ থানা পুলিশ গলায় ফাঁস লাগানো অজ্ঞাত হিসেবে ওই গ্রামের একটি ভুট্টা খেত থেকে সোনিয়ার লাশ উদ্ধার করে। ২০১১ সালের অক্টোবরে লাকী আকতার (১৮) নামে এক তরুণীকে টাকার প্রলোভন দিয়ে ঢাকার একটি আবাসিক হোটেল থেকে এনে মেঘাখদ্দ গ্রামে নিয়ে আবারও সহযোগীদেরসহ ফুর্তি করেন। পর দিন ওই গ্রামের ঈদগাহ মাঠের পাশ থেকে লাকীর লাশ থানা পুলিশ অজ্ঞাত হিসেবে উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়। ২০১২ সালের ডিসেম্বরে তানিয়া (২২) নামে আরেক তরুণীকে একই কায়দায় শিবগঞ্জের নন্দীপুরে নিয়ে আসেন এবং পর দিন লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ২০১৩ সালের অক্টোবরে লিপি (২০) নামে এক তরুণীকে ঢাকার মহাখালী থেকে শিবগঞ্জে এনে তার সঙ্গে থাকা মালামাল লুট করার পর হত্যা করে হলুদ খেতে লাশ ফেলে রাখেন। একই বছরের নভেম্বরে শাপলা (২০) নামে আরেক তরুণীকে ঢাকা থেকে নিয়ে এসে গ্রামের ধান খেতে ধর্ষণের পর গলায় ফাঁস দিয়ে হত্যা করেন। সর্বশেষ চলতি বছরের শুরুতে ঢাকায় একটি এনজিওতে কর্মরত নিপা আক্তারকে বিয়ে করেন। ১৮ এপ্রিল পিচ্চি বাবু সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হওয়ার মিথ্যা খবর দিয়ে নিপাকে বগুড়ার শিবগঞ্জে আসতে বলেন। স্বামীর কথামতো নিপা তার ভাগ্নে সুজনকে (১৬) সঙ্গে নিয়ে ওইদিন সন্ধ্যায় ঢাকা থেকে বগুড়ার মহাস্থানহাটে নামেন। পরে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে নিপা ও সুজনকে তার নিজের বাড়িতে না নিয়ে শিবগঞ্জের ময়দানহাটা ইউনিয়নের মহব্বত নন্দীপুর মাঠে কলাবাগানে নিয়ে অপেক্ষা করেন। রাত আনুমানিক ১১টার দিকে সুজনকে বাড়ি পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে ডেকে নিয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে হত্যা করেন। এরপর ফিরে এসে নিপার সঙ্গে দৈহিক মেলামেশা করেন এবং তাকে হত্যার চেষ্টা চালান। কিন্তু নিপার কৌশলগত কারণে ও সুজনকে হত্যার পর পিচ্চি বাবুর মানসিক অবস্থা খারাপ থাকায় তিনি আর নিপাকে হত্যা করতে পারেননি। ভোরে নিপাকে রেখে পালিয়ে যান পিচ্চি বাবু। এরপর সুজন হত্যার খবর জানাজানি হলে নিপা লাশ শনাক্ত করেন। পরে মামলা তদন্ত করতে গিয়ে পুলিশ নিপার সন্ধান পায় এবং তার সহায়তায় পিচ্চি বাবুকে ঢাকা থেকে গ্রেফতার করে। এদিকে হত্যা ঘটনায় গ্রামের চৌকিদার, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। মামলাগুলোর মধ্যে তিনটির চূড়ান্ত রিপোর্ট জমা দেওয়া হয়। পরে পিচ্চি বাবু গ্রেফতার হলে পুলিশ ওই তিন মামলা পুনরায় নতুন করে শুরু করে এবং বাকিগুলোয় তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়। বগুড়ার সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (এ সার্কেল) মোহাম্মদ নাজির আহম্মেদ বলেন, শিবগঞ্জে একই এলাকায় প্রায় একই ধরনের লাশ উদ্ধারের ঘটনা পুলিশ বিভাগকে ভাবিয়ে তোলে। পুলিশ সুপার মোজাম্মেল হক পিপিএমের নির্দেশে বিষয়টি তদন্ত করতে গিয়ে পিচ্চি বাবুর সন্ধান পাওয়া যায়। পিচ্চি বাবু পুলিশের কাছে স্বীকার করেন যে, এদের মধ্যে শাপলা, তানিয়া, সুজন ও তরমুজ ব্যবসায়ী সামাদকে তিনি হত্যা করেছেন। বাকি তিনজনকে হত্যা করেছেন তার সহযোগীরা। সেসব হত্যাকাণ্ডের সঙ্গেও তিনি জড়িত বলে পুলিশের কাছে স্বীকার করেছেন। সাত মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। তিনটির চূড়ান্ত রিপোর্ট প্রদানের পর আবারও সে মামলাগুলোর নতুন করে তদন্ত চলছে।

উৎসঃ   বাংলাদেশ প্রতিদিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ