• বৃহস্পতিবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২৩, ০৯:৩৭ পূর্বাহ্ন |

শামীম ওসমানও জড়িত!

Samimসিসিনিউজ: নারায়ণগঞ্জের সাত খুনের ঘটনার সাথে সংসদ সদস্য শামীম ওসমানের জড়িত ছিলেন বলে তথ্য-প্রমাণ পেয়েছে গোয়েন্দারা। তারা বলেছেন, অপহরণ ও হত্যার ঘটনার পর থেকে নূর হোসেনের সাথে অনেকবার কথা বলেছেন শামীম ওসমান। সেসব কথার মধ্য দিয়েও ঘটনার সাথে শামীমের সম্পৃক্ত থাকার বিষয়টি তাদের কাছে প্রতীয়মান হয়েছে।

গোয়েন্দা সূত্র জানায়, প্রধান আসামি নূর হোসেন শামীম ওসমানের মদদ ও আশির্বাদেই সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছিলেন। তিনি ছিলেন শামীম ওসমানের ডান হাত। অপহরণের ঘটনার দিন ২৭ এপ্রিল রাতে শামীম ওসমান ফোনে নূর হোসেনকে জিজ্ঞেস করেন, তার (নূর হোসেনের) কাছে কোনো খবর আছে কিনা। তাদের মধ্যে যখন অমন কথা হচ্ছিল, তখনো অপহৃত সাতজনকে হত্যা করে লাশ নদীতে ফেলা হয়নি। পরিকল্পনার শেষ অংশ তখনো বাকি।

এরপর শামীম ওসমান অপহরহরণকৃত গাড়ির সন্ধান পাওয়া এবং নম্বর প্লেট খুলে ফেলার বিষয়ে নূর হোসেনের সাথে কথা বলেন। কথোপকথনের শেষে সাংবাদিকদের সাথে কিভাবে কথা বলতে হবে নূর হোসেনকে তা শিখিয়ে দেন শামীম ওসমান। একই সাথে সাবধান করে দেন, ঢাকা থেকে র‍্যাব এসে তাকে গ্রেপ্তার করতে পারে।

সূত্রটি জানায়, সম্পূর্ণ কথোপকথন থেকেই বোঝা যায় হত্যাকাণ্ডের সাথে শামীম ওসমান সম্পৃক্ত। এরপর গত ২৮ এপ্রিল মধ্যরাতে কথোপকথনের সময় শামীম ওসমান নূর হোসেনকে চ্যালেঞ্জ করে বলেন, র‍্যাব-১১-এর মেজর আরিফ ও লে. কমান্ডার রানার সাথে তার (নূর) ভাল সম্পর্ক রয়েছে তা তিনি জানেন।

শামীম তখন নূরকে জানান, র‍্যাব সদর দপ্তর থেকৈ তাকে বলা হয়েছে, অপহরণেল জন্য তারা নূর হোসেনকে সন্দেহ করে এবং শামীম ওসমান যে নূর হোসেনকে বাঁচাতে চান সেটা তারা বুঝতে পেরেছে। নূর হোসেন এক পর্যায়ে জানতে চান, ‘এই ঘটনায় আমাদের লাভ, না ক্ষতি হলো?’ তখন শামীম ওসমান বিষয়গুলো এড়িয়ে গিয়ে আকারে ইঙ্গিতে কথা বলতে শুরু করেন। তিনি বলেন, ‘নজরুলকে নিয়ে আমি চিন্তিত নই, আমি বেশি চিন্তিত তোমাকে (নূর) নিয়ে।’

এক গোয়েন্দা কর্মকর্তা বলেন, ২৮ এপিলের কথাবার্তাতেও জোরালোভাবে প্রতীয়মান হয় যে, শামীম ওসমান জড়িত।

গোয়েন্দারা আরো জানতে পেরেছেন, অপহরণের ঘটনায় ফতুল্লা থানায় যে মামলা করা হয়েছে শামীম ওসমান তাতে ফাঁক রাখার জন্য ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেন। এ তথ্যটি আবার ফোনে নূর হোসেনকে জানান শামীম ওসমান। সে সময় তিনি নূরকে নিশ্চিন্ত থাকতে বলেন। তিনি বলেন, ‘তুমি শুধু কোর্টের ব্যাপারটা সামাল দাও, বাকিটা আমি দেখব।’

এছাড়া গত ২৯ এপ্রিল রাতের যে ফোনালাপ মিডিয়ায় প্রকাশিত হয়েছে সেটিকেও একটি প্রমাণ মনে করছেন গোয়েন্দারা। তাদের কাছে প্রতীয়মান হয়েছে, ‘নূর হোসেন মূলত শামীম ওসমানের সাহায্য ও পরামর্শে গোপনে সীমান্ত পার হয়ে ভারতে আত্মগোপন করেছে।’

নজরুলের স্ত্রী প্রথম থেকেই বার বার তার স্বামীর অপহরণ ও খুনের পেছনে শামীম ওসমানকে দায়ী করেছিলেন। পরে শামীম ওসমান নজরুলের শশুড় শহীদ চেয়ারম্যানকে ডেকে তার মেয়েকে সামলাতে বলেন এবং এলাকার নেতৃত্ব ও আওয়ামী লীগে বড় পদ দেয়ার লোভ দেখান। এই তৎপরতাও ঘটনার সাথে শামীম ওসমানের সংশ্লিষ্টতা প্রমাণ করে বলে গোয়েন্দারা জানিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, গত ২৭ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র ও ৩নম্বর ওয়ার্ডেরকাউন্সিলর নজরুল ইসলাম এবং আইনজীবী চন্দন সরকারসহ সাতজন দিনে দুপুরে অপহৃত হন।ওইদিন সন্ধ্যায় গাজীপুর থেকে নজরুলের গাড়ি উদ্ধারকরা হয়। এরপর ৩০ এপ্রিল দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত শীতলক্ষ্যা নদী থেকেঅপহৃতদের মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। উৎসঃ   পরিবর্তন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আর্কাইভ