• শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০৪:০৪ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
বেঞ্চ ও বারের সুসম্পর্কের মধ্য দিয়ে বিচার ব্যবস্থা সমৃদ্ধ হয়- নীলফামারীতে প্রধান বিচারপতি সৈয়দপুর বিজ্ঞান কলেজ চত্ত্বর থেকে কিশোরের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার  নীলফামারী শহরে অগ্নিকান্ডে ৫ দোকান পুড়ে ছাই জলঢাকায় মিন্টু, কিশোরগঞ্জে রশিদুল, সৈয়দপুরে রিয়াদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত বিএনপি-জামায়াতের ষড়যন্ত্রের বিষদাত ভেঙে দেওয়া হবে: নানক সৈয়দপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভজে পুত্রের জয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য মাউশির ৯ নির্দেশনা ভোটের আগেই জামিন পেলেন চেয়ারম্যান প্রার্থী ফুলবাড়ীতে ৪৮ রোগী পেল ২৪ লাখ টাকার চিকিৎসা সহায়তার চেক ফুলবাড়ীতে চারটি চোরাই গরু উদ্ধার, গ্রেফতার তিন

সৈয়দপুরে গোলাহাট বদ্ধভূমিতে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মানের ফলক উন্মোচন

Nilphamariসিসিনিউজ: নীলফামারীর সৈয়দপুর শহরের পশ্চিম প্রান্তে গোলাহাট বদ্ধভূমিতে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ কাজের ফলক আনুষ্ঠানিক ভাবে উদ্বোধন করা হয়েছে। জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় হুইপ আলহাজ্ব শওকত চৌধুরী এমপি আজ শুক্রবার দুপুরে ফলক উন্মোচন করেন।
সূত্রমতে, মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে ১৩ জুনের এ দিনে সৈয়দপুরে সংঘটিত হয় সবচেয়ে জঘন্যতম লোমহর্ষক গণহত্যা। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের ওই দিনে শহরের অবরুদ্ধ হিন্দু ও মাড়োয়ারি পরিবারগুলোকে ভারতে পৌছে দেয়ার কথা বলে সৈয়দপুর রেলওয়ে স্টেশনে একত্রিত করা হয়। পরে সবাইকে তোলা হয় একটি বিশেষ ট্রেনে। ট্রেনটি স্টেশন থেকে চিলাহাটি অভিমুখে ছেড়ে প্রায় ২ কিলোমিটার দূরে গোলাহাট এলাকায় পৌছালে সেটিকে থামিয়ে দেয় পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর এদেশীয় দোসরেরা। তারা তালোয়ার দিয়ে কুপিয়ে মুক্তিপাগল ৪৪৮ নারী-পুরুষকে নির্মমভাবে হত্যা করে। তাদের এ নির্মমতা থেকে রেহাই পায়নি অবুঝ শিশু ও বৃদ্ধরা পর্যন্ত। সেদিনের সেই নৃশংস হত্যাযজ্ঞ থেকে ভাগ্যক্রমে মাত্র কয়েকজন জীবন রা করতে সম হয়েছিলেন। তবে সেদিনের নির্মম সে স্মৃতি এখনও ভুলতে পারেননি তারা। মুক্তিযুদ্ধে এটিই ছিল সৈয়দপুর তথা অত্রাঞ্চলের সবচেয়ে জঘন্যতম গণহত্যা।
স্বাধীনতার পর থেকে গোলাহাটের বদ্ধভূমিতে একটি স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণের  দাবি করে আসছিল স্থানীয় শহীদ পরিবারের সদস্য ও স্বাধীনতার পরে মানুষেরা। কিন্তু দীর্ঘ ৪৩ বছরেও এর বাস্তবায়ন সম্ভব হয়নি। বর্তমান সাংসদ সদস্য স্মৃতিস্তম্ভটি নির্মানের জন্য ব্যক্তিগত ভাবে উদ্যোগ নেন।
এ প্রসঙ্গে গোলাহাট বদ্ধভূমিতে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ বাস্তবায়ন কমিটির সদস্য সচিব ও শহীদ পরিবারের সদস্য নিজু কুমার আগরওয়ালা বলেন, ১৩ জুন আমাদের জীবনে একটি শোকাবহ দিন। বিরোধী দলীয় হুইপ আলহাজ্ব শওকত চৌধুরী ব্যক্তিগত উদ্যোগে এখানে স্মৃতিস্তম্ভ¢ নির্মাণ করতে যাচ্ছেন। যা স্বস্তি  এনে দিয়েছে শহীদ পরিবারের সদস্যদের মাঝে।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন সৈয়দপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাওয়াদুল হক সরকার, সাবেক সৈয়দপুর পৌরসভার চেয়ারম্যান আলহাজ্ব বখতিয়ার কবির, হত্যাযজ্ঞ থেকে বেঁচে যাওয়া তপন কুমার দাস ওরফে কাল্টু, উপজেলা আ’লীগের সভাপতি আব্বাছ আলী সরকার, শহীদ পরিবারের সন্তান অধ্যাপক সাখাওয়াত হোসেন খোকন, স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক রাজ কুমার পোদ্দার প্রমুখ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আর্কাইভ