• শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০৩:২৪ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
বেঞ্চ ও বারের সুসম্পর্কের মধ্য দিয়ে বিচার ব্যবস্থা সমৃদ্ধ হয়- নীলফামারীতে প্রধান বিচারপতি সৈয়দপুর বিজ্ঞান কলেজ চত্ত্বর থেকে কিশোরের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার  নীলফামারী শহরে অগ্নিকান্ডে ৫ দোকান পুড়ে ছাই জলঢাকায় মিন্টু, কিশোরগঞ্জে রশিদুল, সৈয়দপুরে রিয়াদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত বিএনপি-জামায়াতের ষড়যন্ত্রের বিষদাত ভেঙে দেওয়া হবে: নানক সৈয়দপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভজে পুত্রের জয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য মাউশির ৯ নির্দেশনা ভোটের আগেই জামিন পেলেন চেয়ারম্যান প্রার্থী ফুলবাড়ীতে ৪৮ রোগী পেল ২৪ লাখ টাকার চিকিৎসা সহায়তার চেক ফুলবাড়ীতে চারটি চোরাই গরু উদ্ধার, গ্রেফতার তিন

সৈয়দপুরে মোবাইল সার্ভিসিং সেন্টারের অন্তরালে…

Mobail Servisingএম.এম ইসলাম, সিসিনিউজ: নীলফামারী জেলার সৈয়দপুর উপজেলায় দিন-দিন যতযত্র ব্যাঙের ছাতার মতো মোবাইল ফোন সার্ভিসিং সেন্টার গড়ে উঠেছে। অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানে অদক্ষ শ্রমিক থাকায় তারা মেরামতের নামে সেটের কার্যকারিতা নষ্ট করছে। পার্টস খুলে নেয়া, অতিরিক্ত মজুরি আদায়, নিম্নমানের যন্ত্রাংশ ও ব্যাটারি বিক্রি ছাড়াও তাদের হাতে সাধারণ জনগণ বিভিন্নভাবে নাজেহাল হচ্ছে। অনেক সার্ভিসিং সেন্টারে অবাঁধে চোরাই বা ছিনতাই হওয়া সেট বিক্রি করা হচ্ছে দেদারছে। অনুসন্ধ্যানে জানা গেছে, মোবাইল ফোন ও সিম সহজলভ্য হওয়ায় এ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ভিন্ন ভিন্ন পেশার মানুষের হাতে এটি শোভা পাচ্ছে। তবে ডিজিটাল ক্যামেরা ও মাল্টিমিডিয়া সেটের কদর খুবই বেশি। এদিকে সেট বিক্রি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বিভিন্ন স’ানে মোবাইল ফোন সার্ভিসিং সেন্টারও গড়ে উঠেছে। মোবাইল ফোনের বিভিন্ন পার্টস ও ব্যাটারি বিক্রিরও অনেক দোকান ও হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, সৈয়দপুর প্লাজা, শহীদ ডাঃ জিকরুল হক রোড সহ বিভিন্ন স্থানে এই পর্যন্ত শতাধিক সার্ভিসিং সেন্টার গড়ে উঠেছে। এর মধ্যে সৈয়দপুর প্লাজাতেই রয়েছে প্রায় অর্ধ শতাধিক সার্ভিসিং সেন্টার। এসব সেন্টারে কয়েকশ তরুণ-যুবকের কর্মসংস্থানের সুযোগ হয়েছে। এদের সিকিভাগ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত। অভিযোগ রয়েছে, অধিকাংশ সার্ভিসিং সেন্টারের আড়ালে প্রকাশ্যে চোরাই ও ছিনতাই হওয়া মোবাইল ফোন সেট কেনাবেচা হয়। আবার মাদকাসক্ত তরুণরাও নেশার টাকার জন্য সেট বিক্রি করে থাকে এই সব সার্ভিসিং সেন্টারগুলোতে। এসব দোকান থেকে পুরানো সেট কিনে অনেক সাধারণ মানুষ প্রতারিত হচ্ছেন। এছাড়া নিম্নমানের পার্টস ও নামসর্বস্ব কোম্পানির ব্যাটারি বিক্রি করেও সাধানর জনগণকে ঠকানো হচ্ছে অহরহ। অপ্রশিক্ষিত শ্রমিকরা সহজ সরল জনগণের ফোন মেরামত করে দেয়ার নামে তাদের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে কিন্তু’ সেট সঠিকভাবে ঠিক হচ্ছে না। অনেক সময় তারা সেট মেরামত করতে না পারলেও মজুরি দিতে হয় অনেককে। আবার সেট থেকে মূল্যবান পার্টস খুলে নেয়ারও অভিযোগ রয়েছে বিভিন্ন সার্ভিসিং সেন্টারের। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্লাজায় মোবাইল সেন্টারের এক টেকনিশিয়ান জানান, কিছু অসৎ মালিক-শ্রমিকের কারণে সবাই দুর্নামের ভাগি হচ্ছে। তারা চোরাই মোবাইল কেনাবেচা ছাড়াও গ্রাহকদের মেরামতের নামে প্রতারণা করছে। এ বিষয়টি পুলিশ প্রশাসনের নজরে আসলে সাধারণ মানুষ অহেতুক ভাবে নাজেহালের হাত থেকে রক্ষা পাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন সচেতন এলাকার সুশীল সমাজ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আর্কাইভ