• শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০৩:৪৬ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
বেঞ্চ ও বারের সুসম্পর্কের মধ্য দিয়ে বিচার ব্যবস্থা সমৃদ্ধ হয়- নীলফামারীতে প্রধান বিচারপতি সৈয়দপুর বিজ্ঞান কলেজ চত্ত্বর থেকে কিশোরের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার  নীলফামারী শহরে অগ্নিকান্ডে ৫ দোকান পুড়ে ছাই জলঢাকায় মিন্টু, কিশোরগঞ্জে রশিদুল, সৈয়দপুরে রিয়াদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত বিএনপি-জামায়াতের ষড়যন্ত্রের বিষদাত ভেঙে দেওয়া হবে: নানক সৈয়দপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভজে পুত্রের জয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য মাউশির ৯ নির্দেশনা ভোটের আগেই জামিন পেলেন চেয়ারম্যান প্রার্থী ফুলবাড়ীতে ৪৮ রোগী পেল ২৪ লাখ টাকার চিকিৎসা সহায়তার চেক ফুলবাড়ীতে চারটি চোরাই গরু উদ্ধার, গ্রেফতার তিন

গোঁফ দিয়ে ফ্রেডের গোল!

Fredসিসি ডেস্ক: ফুটবল হলো জীবন, আর বিশ্বকাপ হলো সেই জীবনের সবচেয়ে বড় সিরিয়াল। নয়ত ব্রাজিল যেখানে একটানা উন্নতি করে চলেছে, বিশ্বকাপে কোথায় মেক্সিকোর বিরুদ্ধে ড্র, আর কোথায় ক্যামেরুনকে ৪-১ গোলে নস্যাৎ করে দেয়। সেখানে হঠাৎ ফ্রেডের গোঁফের কথা এলো কেন? কথায় বলে : গোঁফের আমি, গোঁফের তুমি, গোঁফ দিয়ে যায় চেনা। সেরকম কোনো কাহিনি নয় তো?
তাহলে গোঁফের গল্পটাই আগে বলা যাক, ফ্রেড যেমন বলেছেন। সোমবার ক্যামেরুনের বিরুদ্ধে ম্যাচের ৪৯ মিনিটের মাথায় ডেভিড লুইজের বাঁ দিক থেকে করা ক্রসটিতে হেড করে গোল করেন ফ্রেড, চলতি বিশ্বকাপে তার প্রথম গোল।
অথচ এ বিশ্বকাপ তার ভালো যাচ্ছিল না। এমনকি ফ্রেড নাকি তার গোঁফ ছেঁটে ফেলার কথা ভাবছিলেন। নেইমারের ভাষ্যে : আমি ও-কে বলেছিলাম, ফ্রেড, তুমি যদি গোঁফটা রাখো, তাহলে তুমি গোল করবে। গোঁফ কখনো ব্যর্থ হয় না। গোল করার পর আমি ওর কাছে গিয়ে বললাম, দেখলে তো? বলেছিলাম না, গোঁফ কখনো ফেল করে না। ফ্রেডের ভাষ্যে : বললে কেউ বিশ্বাস করবে না, কিন্তু বলটা খুব জোরে এসে আমার গোঁফে লাগে। ওটা ছিল একটা গোঁফ দিয়ে করা গোল।
এই ফ্রেড-ই গত বছরের কনফেডারেশনস কাপে পাঁচটি গোল করেছিলেন, তার মধ্যে দুটি ফাইনালে, স্পেনের বিরুদ্ধে। ব্রাজিলের কোচ লুইজ ফেলিপে স্কোলারি সে যাবৎ পারতপক্ষে তার উইনিং টিম বদলাননি, এমনকি বিশ্বকাপের জন্যেও নয়। ফ্রেড ও পাওলিনিয়োর প্রতি তার আস্থা অটুটই রয়েছে। যে ব্রাজিল এককালে রোনাল্ডো, রোনাল্ডিনিয়ো এবং রিভাল্ডো, এই ত্রয়ীর উপর নির্ভরশীল ছিল, তাদের সবেধন নীলমণি এখন ২২ বছর বয়সি নেইমার : এ-তে স্কোলারি নিন্দনীয় কিংবা আশঙ্কাজনক কিছু দেখেন না।
নেইমার সম্পর্কে তার বক্তব্য : আমরা নেইমারের উপর নির্ভর করি, যেমন আর্জেন্টিনা মেসির উপর নির্ভর করে। টপ লেভেলের প্লেয়াররা সব দলেই ওই পার্থক্যটুকু এনে দেয়। আমরা যা করি, তার অনেকটাই নেইমার।
কিন্তু শুধু নেইমার নয়। গ্রুপ পর্যায়ে ব্রাজিলের তৃতীয় এবং শেষ খেলা সেটাই প্রমাণ করল। ইতিমধ্যেই একটা হলুদ কার্ড দেখা আছে বলে আগেভাগেই নেইমারকে বার করে নিলেন স্কোলারি, কেননা হলদে কার্ড থাকবে প্রি-কোয়ার্টার ফাইনাল অবধি, মুছে যাবে কোয়ার্টার ফাইনালে পৌঁছালে। স্কোলারি তার সবচেয়ে বড় অস্ত্রটি একটি ম্যাচের জন্যও হারাতে রাজি নন। অপরদিকে ব্রাজিল যে দল হিসেবে এগোচ্ছে, বহু মাল্লার দাঁড়া টানা ঢাউস নৌকার মতো ধাপে ধাপে এগিয়ে চলেছে, সেটা স্কোলারি এবং তার সন্তানসুলভ স্টার নেইমার, দুজনেই লক্ষ্য করেছেন।
সোমবার ম্যান-অফ-দ্য-ম্যাচ হবার পর নেইমার বলেছেন : দলই হলো সবচেয়ে বড় কথা আর এটাই ছিল এ যাবৎ আমাদের সেরা পারফর্মেন্স। শুধু কতগুলো গোল করেছি, সেজন্য নয়, বরং আমরা যেভাবে খেলেছি, সেজন্য।…আমরা ঠিকপথে চলেছি, একটানা বেড়ে চলেছি, আমাদের স্বপ্নকে সত্যি করার দিকে এগোচ্ছি। স্কোলারি বলেছেন : আমরা প্রায় আদর্শ পর্যায়ে পৌঁছে গেছি, নকআউট রাউন্ডে যাবার আগে সেখানে পৌঁছানোটা জরুরি। এবার আমাদের আরো কম ভুল করতে হবে। গ্রুপ স্টেজে একবার পা পিছলোলে কোনো আপত্তি নেই, অন্য দুটি ম্যাচ জিতলেই হলো। এবার আর সেটা করা যাবে না কেননা একটা গোলেই জয়পরাজয় নির্ধারিত হয়ে যেতে পারে।
অথবা একটা ম্যাচে। গ্রুপ এ-র বিজয়ী হিসেবে নক-আউট রাউন্ডে ব্রাজিলের প্রথম খেলা আগামী শনিবার, গ্রুপ বি-র রানার্স-আপ চিলির সঙ্গে। স্কোলারি সে বিষয়ে আদৌ সুখি নন : এর আগে চিলির বিরুদ্ধে দুবার খেলেছি। আমরা জানি ওরা কতটা মুশকিলের প্রতিপক্ষ। লোকে ভাবে আমরা সহজেই চিলিকে হারাব, কিন্তু ওরা আসলে একটা ওয়েল অর্গানাইজড, কোয়ালিটি সাইড। যদি বিপক্ষ দলকে বেছে নেয়া চলতো, তাহলে আমি চিলিকে বাছতাম না।
সূত্র : ডয়চে ভেল।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আর্কাইভ