• শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০৪:১৫ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
বেঞ্চ ও বারের সুসম্পর্কের মধ্য দিয়ে বিচার ব্যবস্থা সমৃদ্ধ হয়- নীলফামারীতে প্রধান বিচারপতি সৈয়দপুর বিজ্ঞান কলেজ চত্ত্বর থেকে কিশোরের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার  নীলফামারী শহরে অগ্নিকান্ডে ৫ দোকান পুড়ে ছাই জলঢাকায় মিন্টু, কিশোরগঞ্জে রশিদুল, সৈয়দপুরে রিয়াদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত বিএনপি-জামায়াতের ষড়যন্ত্রের বিষদাত ভেঙে দেওয়া হবে: নানক সৈয়দপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভজে পুত্রের জয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য মাউশির ৯ নির্দেশনা ভোটের আগেই জামিন পেলেন চেয়ারম্যান প্রার্থী ফুলবাড়ীতে ৪৮ রোগী পেল ২৪ লাখ টাকার চিকিৎসা সহায়তার চেক ফুলবাড়ীতে চারটি চোরাই গরু উদ্ধার, গ্রেফতার তিন

পার্বতীপুরে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা করে বিপাকে নির্যাতিতা গৃহবধু

PARBATIPUR PICপার্বতীপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: পার্বতীপুরে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা করে বিপাকে পড়েছেন পার্বতীপুরের নির্যাতিতা গৃহবধু সায়মা খাতুন। মামলা তুলে নিতে হুমকি দিচ্ছেন মামলার বিবাদী চেয়ারম্যনসহ তার অনুসারীরা। তিনি আজ বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৪টায় পার্বতীপুর মিডিয়া কর্নারে সংবাদ সম্মেলনে চেয়ারম্যানের নির্যাতনের চিত্র তুলে ধরে আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন। এ সময় তার সাথে ছিলেন ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী নির্যাতনের শিকার চেয়ারম্যানের সাবেক ম্যানেজার  রওশন আলী ও ফজলুল হক মন্ডল।
পার্বতীপুরের নির্যাতিতা গৃহবধু সায়মা খাতুন(৩৪)বলেন, উপজেলার পলাশবাড়ী ইউনিয়নের মধ্যে আটরাই গ্রামের প্রতিবেশী নুর আলমের পুত্র মুদি দোকানদার সাগর (২৮)কে ৬৭ হাজার টাকা ধার দেয় সে। পরবর্তীতে টাকা ফেরত চাইতে গেলে সাগর তাল-বাহানা করতে থাকে। নিরুপায় গৃহবধু বিষয়টি থানা ও চেয়ারম্যানকে লিখিতভাবে অভিযোগ দেন। চেয়ারম্যান ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে উভয়পক্ষকে শালিসে ডাকলেও সাগর না আসায় আবারও চেয়ারম্যানের নিজ বাড়িতে শালিস বৈঠকের ডাক দেন। গৃহবধু নির্দিষ্ট দিনে বৈঠকে উপস্থিত হলেও রহস্য জনক কারনে চেয়ারম্যান পূনরায় পরদিন  বৈঠকের দিন ধার্য করেন। গৃহবধু সায়মা খাতুন আরো জানান, চেয়ারম্যান বিবাদী পক্ষের লোকজনের কাছ থেকে প্রায় আধা ঘন্টা ঘটনার বর্ননা শুনেন। পরে সায়মা ঘটনার বর্ননা করতে গেলে চেয়ারম্যান মাত্র ২ মিনিট সময় বেঁধে দেয় তাকে। সেই সাথে সাক্ষী উপস্থাপন করতে চাইলেও চেয়ারম্যান বলেন তুমি ৫০ জন সাক্ষী আনলেও তোমার কথা আমি বিশ্বাস করি না। তোমার মতো নষ্টা ও পতিতা মেয়ের বিচার আমি করব না। প্রতিবাদ করলে এক পর্যায়ে চেয়ারম্যান সায়মাকে লাথি মেরে বারান্দা থেকে নিচে ফেলে দেয়। চড় থাপ্পর মেরে চুলের মুঠি ধরে টেনে হেঁচড়ে শালিস থেকে রাস্তায় বের করে দেয়। এ ঘটনায় সায়মা চেয়ারম্যানসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে পার্বতীপুর মডেল থানায় মামলা দায়ের করে। চেয়ারম্যান ও তার সহযোগীরা জামিন পেয়েই তারা আমার উপর নানা রকম হুমকি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করছে। এ নিয়ে সায়মা আবারও দিনাজপুর এক্সিকিউটিভ ম্যাজিষ্ট্রেট সি,আর,পি,সি আদালতে আরো একটি মামলা দায়ের করার পর থেকেই চেয়ারম্যানসহ অন্যান্য সহযোগিরা বর্তমানে নির্যাতিতা সায়মাকে প্রকাশ্য দিবালোকে এসিড নিক্ষেপসহ হত্যার হুমকি দিচ্ছেন।  চরম নিরাপত্তা হীনতায় দিনাতীপাত করছে বলে সায়মা অভিযোগ করে বলেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আর্কাইভ