• শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০৪:১২ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
বেঞ্চ ও বারের সুসম্পর্কের মধ্য দিয়ে বিচার ব্যবস্থা সমৃদ্ধ হয়- নীলফামারীতে প্রধান বিচারপতি সৈয়দপুর বিজ্ঞান কলেজ চত্ত্বর থেকে কিশোরের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার  নীলফামারী শহরে অগ্নিকান্ডে ৫ দোকান পুড়ে ছাই জলঢাকায় মিন্টু, কিশোরগঞ্জে রশিদুল, সৈয়দপুরে রিয়াদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত বিএনপি-জামায়াতের ষড়যন্ত্রের বিষদাত ভেঙে দেওয়া হবে: নানক সৈয়দপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভজে পুত্রের জয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য মাউশির ৯ নির্দেশনা ভোটের আগেই জামিন পেলেন চেয়ারম্যান প্রার্থী ফুলবাড়ীতে ৪৮ রোগী পেল ২৪ লাখ টাকার চিকিৎসা সহায়তার চেক ফুলবাড়ীতে চারটি চোরাই গরু উদ্ধার, গ্রেফতার তিন

ফিলিস্তিনের পক্ষে দৃঢ় অবস্থান বাংলাদেশের

84293_1সিসিনিউজ: ‘বাংলাদেশ সন্দেহাতীতভাবে বিশ্বাস করে, ইসরাইল কর্তৃক ফিলিস্তিনি ভূমি দখল অবশ্যই বন্ধ হবে এবং রাজধানী পশ্চিম জেরুসালেম নিয়ে নিজেদের স্বাধীন রাষ্ট্র পাবে ফিলিস্তিনি জনগণ।’

ইসরাইলের আগ্রাসনের তীব্র নিন্দা জানিয়ে এভাবেই ফিলিস্তিনের পক্ষে দৃঢ় অবস্থান ব্যক্ত করেছে বাংলাদেশ।

শুক্রবার বিকালে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বহিঃপ্রচার ও অনুবিভাগ এক বিবৃতিতে বাংলাদেশ সরকারের সুস্পষ্ট অবস্থান তুলে ধরা হয়েছে।

বিবৃতিতে, ‘ ফিলিস্তিনের গাজায় চলমান ইসরাইলি আগ্রাসন ও জীবননাশী নৃশংসতার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ’ জানিয়েছে বাংলাদেশ সরকার। একইসঙ্গে চলমান পরিস্থিতিতে ‘উভয়পক্ষকে সর্বোচ্চ সহনশীলতার পরিচয় দেওয়ার’ আহ্বান জানানো হয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, সম্প্রতি গাজায় ইসরাইলি বাহিনীর নৃশংসতা ও জীবননাশী সহিংসতার ঘটনায় বাংলাদেশ গভীরভাবে মর্মাহত। বিমান হামলায় মর্মান্তিকভাবে বেসামরিক লোকজনের প্রাণহানি ও সম্পদের ক্ষয়ক্ষতি আঞ্চলিক শান্তি ও স্থিতিশীলতার ওপর নতুন করে হুমকি সৃষ্টি করেছে।

ইসরাইলের এ আগ্রাসনের কঠোর নিন্দা জানিয়ে গাজায় বেসামরিক লোকজনের ওপর নৃশংসতা বন্ধে উভয়পক্ষকে সর্বোচ্চ সহনশীলতা প্রদর্শনের আহ্বান জানাচ্ছে বাংলাদেশ।

বিবৃতিতে জানানো হয়, আরব অঞ্চলের শান্তি পরিকল্পনা ও রোডম্যাপ অনুযায়ী ফিলিস্তিন প্রসঙ্গে জাতিসংঘ গৃহীত প্রস্তাবনার সঙ্গেই বাংলাদেশ একমত পোষণ করে। যে কোনো ধরনের প্রাণহানি বন্ধে বাংলাদেশ উভয়পক্ষকে সর্বোচ্চ সহনশীলতা প্রদর্শনের আহ্বান জানাচ্ছে এবং চলমান সমস্যা সমাধানে আগের মতো শান্তি প্রক্রিয়া পুনর্জীবিত করার লক্ষ্যে সংলাপে বসার আহ্বান জানাচ্ছে।

রাষ্ট্র হিসেবে ইসরাইলের অস্তিত্ব স্বীকার করে না বাংলাদেশ। বাংলাদেশের পাসপোর্টে পষ্ট করে বলা আছে, ‘ইসরাইল ব্যতিত বিশ্বের সকল দেশের জন্য প্রযোজ্য’।

১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে ইসরাইল প্রথম রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিতে চাইলেও মুক্তিযুদ্ধকালীন সরকার এই স্বীকৃতি প্রত্যাখ্যান করে।

বরং ১৯৭২ সালে স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করে রাষ্ট্র হিসেবে ইসরাইলকে আখ্যা দিয়ে ফিলিস্তিনের স্বাধীনতার পক্ষে দৃঢ় অবস্থান নেন। তিনি ফিলিস্তিনের স্বাধীনতা আন্দোলনের মহান নেতা ইয়াসির আরাফাতকে নিজের ও বাংলাদেশের চিরকালীন বন্ধু হিসেবে বরণ করে নেন।

বঙ্গবন্ধু সরকারের সময় থেকে সব সরকারের আমলে ফিলিস্তিনি শিক্ষার্থীদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিকেল কলেজ ও বুয়েটসহ সব উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণের ব্যবস্থা করা হয়।

ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ ও কূটনীতিকদের অত্যন্ত সম্মানজনকভাবে বরণ করা হয় বাংলাদেশে।

জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক ফোরামে যতবার ফিলিস্তিনকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার দাবি ওঠেছে ততবারই বাংলাদেশ দৃঢ় সমর্থন যুগিয়েছে ফিলিস্তিনকে।

বাংলাদেশের হাজারেরও বেশি তরুণ, যারা অনেকেই ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন, ফিলিস্তিনের স্বাধীনতার জন্যও মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন। এই যুদ্ধে অংশ গ্রহণ করতে গিয়ে অনেক বাংলাদেশি সাহসী প্রাণ শাহাদাত বরণ করেন।

উৎসঃ   অনলাইন বাংলা


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আর্কাইভ