• বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ০৬:২৮ পূর্বাহ্ন |

বোমাবাজদের তালিকা মন্ত্রণালয়ে, রাজপথে সাঁজোয়াযান

APCসিসি ডেস্ক: বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের চলমান সরকারবিরোধী আন্দোলনে সিলেটে সংগঠিত ‘নাশকতার সাথে জড়িতদের’ এবং নাশকতায় ‘মদদদাতাদের’ তালিকা করা হয়েছে। পুলিশ ও গোয়েন্দা সংস্থা এই তালিকা তৈরি করেছে। ইতোমধ্যে তালিকাটি ঢাকায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে।

তালিকায় সিলেট বিএনপি-জামায়াতের শীর্ষ স্থানীয় নেতাদের নাম রয়েছে। এছাড়াও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে প্রেরিত তালিকা নিয়ে অভিযান শুরু করেছে সিলেট মহানগর পুলিশ।

এদিকে নাশকতা এড়াতে সিলেট নগরীর রাজপথে ফের নামানো হয়েছে সাঁজোয়াযান বা আর্মড পারসোনাল ক্যারিয়ার (এপিসি)। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, চলমান সরকারবিরোধী আন্দোলনে সিলেটে গত প্রায় দেড়মাসে ব্যাপক সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। অন্তত ৩০টির বেশি যানবাহনে পেট্রোলবোমা ছুঁড়ে আগুন দেয়া হয়েছে। ভাঙচুর করা হয়েছে শতাধিক যানবাহন।

এছাড়া প্রায় প্রতিদিনই নগরজুড়ে বিস্ফোরিত হচ্ছে ককটেল, হাতবোমা। এসব নাশকতামূলক কর্মকাণ্ডে কারা জড়িত, কারা মদদদাতা, নাশকতার পেছনে কারা অর্থের জোগানদাতা- এসব তথ্য সংগ্রহে ব্যাপক তৎপরতা চালিয়েছে গোয়েন্দারা। এ কাজে পুলিশও সহযোগিতা করেছে তাদের। নিজস্ব সোর্স, গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ আর নগরীতে বসানো সিসিটিভির মাধ্যমে ধারণকৃত ভিডিওচিত্রের সাহায্য নিয়ে সিলেটের ‘নাশকতাকারী’ ও ‘নাশকতায় মদদদাতাদের’ তালিকা বানিয়েছে পুলিশ। এছাড়া অতীতে যারা ‘নাশকতায় জড়িত’ ছিলেন, তাদের কর্মকাণ্ডও তালিকা বানানোর ক্ষেত্রে বিবেচনায় আনা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রটি জানায়, তালিকায় বিএনপি ও অঙ্গসংগঠন এবং ২০ দলীয় জোটের এমএ হক, আবদুল গাফফার, আবদুল কাইয়ুম জালালী পংকি, দিলদার হোসেন সেলিম, নাসিম হোসাইন, রেজাউল হাসান কয়েস লোদী, জেলা বিএনপির যুগ্ম-আহ্বায়ক আলী আহমদ, শামসুজ্জামান জামান, হাবিবুর রহমান, অ্যাডভোকেট সাঈদ আহমদ চৌধুরী, এমরুল হাসান, নুরুল আলম সিদ্দিকী খালেদ, সায়েফ আহমদ, হাফেজ আনোয়ার হোসাইন, ফখরুল ইসলাম, মাওলানা সোহেল আহমদ, ফরিদ আল মামুন, মাশুক আহমেদ, আনোয়ারুল ওয়াদুদ টিপু, আজিম উদ্দিন, হোসাইন আহমদ, এহসানুল করিম, ইউসুফ বিন সানী, মাহবুব কাদীর, রেজাউল করিম, বদরুল ইসলাম, সায়মন আহমদ, সাদিকুর রহমান প্রমুখ নেতাদের নাম রয়েছে।

এছাড়া জেলা ও মহানগর ছাত্রদলের বিবদমান অন্তত ১৮টি গ্রুপ-উপগ্রুপের নেতাদের নাম রয়েছে এই তালিকায়।

সূত্র আরো জানায়, পুলিশ ও গোয়েন্দারা এই তালিকা তৈরির পর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। পরে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কর্তৃক ফের এই তালিকার বিষয়ে গোয়েন্দা প্রতিবেদন চাওয়া হয়।

গোয়েন্দা প্রতিবেদনে বলা হয়, সিলেটে চলমান সহিংসতা বন্ধে তালিকাভুক্তদের গ্রেপ্তার করা জরুরি। একইসঙ্গে এই তালিকার গ্রেপ্তারকৃতরা যাতে জামিন না পায়, সেদিকে দৃষ্টি রাখার ব্যাপারেও প্রতিবেদনে সুপারিশ করা হয়। গোয়েন্দা প্রতিবেদন পাওয়ার পর পুলিশ ও র‌্যাবকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। সে অনুযায়ী ইতোমধ্যেই তালিকা ধরে গ্রেপ্তার অভিযানে নেমেছে সিলেট মহানগর পুলিশ।

তালিকার বিষয়টি স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানও গণমাধ্যমের কাছে স্বীকার করেছেন। তিনি বলেছেন, ‘একটি তালিকা করা হয়েছে। সে অনুযায়ী অভিযান চলছে।’

পুলিশের মহাপরিদর্শক একেএম শহীদুল হকও বিষয়টির সত্যতা স্বীকার করে গণ্যমাধম্যকে বলেছেন, ‘যারা সহিংসতার সঙ্গে জড়িত ও ইন্ধনদাতা তাদের আমরা শনাক্ত করেছি। তাদের তালিকা আমাদের হাতে রয়েছে। তাদের উপর নজরদারি বাড়ানো ও অভিযান জোরদার করা হচ্ছে।’

এদিকে সিলেট নগরীর রাজপথে ফের নেমেছে সাঁজোয়াযান বা আর্মড পারসোনাল ক্যারিয়ার (এপিসি)। ২০ দলীয় জোটের ডাকা হরতাল, অবরোধে নাশকতা ঠেকাতে বুধবার সাঁজোয়াযান নিয়ে নগরীতে টহল দিতে দেখা গেছে মহানগর পুলিশকে।

গত ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে নাশকতা ঠেকাতে মহানগর পুলিশ রাস্তায় নামিয়েছিল সাঁজোয়াযান। তখন প্রতিদিনই এ যান নিয়ে টহল দিতো পুলিশ। কোথাও নাশকতার খবর পেলেই সাঁজোয়াযান নিয়ে ছুটতেন পুলিশ সদস্যরা। রাস্তায় সাঁজোয়াযান নামার পর আন্দোলনকারীদের মাঝেও ভীতি সঞ্চার হয়।

তবে ২০ দলীয় জোটের চলমান হরতাল-অবরোধে এতোদিন সাঁজোয়াযান বা এপিসি’র টহল খুব একটা লক্ষ্য করা যায়নি। বুধবার হরতাল-অবরোধের পাশাপাশি মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে জামায়াতের নায়েবে আমির আবদুস সোবহানের ফাঁসির রায় ঘোষণার পরপরই সিলেটের রাস্তায় নামানো হয় এপিসি। পুলিশ ও বিজিবির নিয়মিত টহলের পাশাপাশি এপিসি দিয়ে টহলও জোরদার করা হয় নগরীতে।

বুধবার নগরীর জিন্দাবাজার, বন্দরবাজার, কোর্ট পয়েন্ট, তালতলা, চৌহাট্টা, শেখঘাট, রিকাবীবাজার, আম্বরখানা, শাহীঈদগাহ, মদিনা মার্কেটসহ বিভিন্ন স্থানে সাঁজেয়াযান নিয়ে পুলিশকে টহল দিতে দেখা গেছে।

সিলেট মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার মোহাম্মদ রহমত উল্লাহ বাংলামেইলকে বলেন, ‘তালিকা নিয়মিত হালনাগাদ করা হচ্ছে। প্রায় প্রতিদিনই পুলিশের অভিযানে নাশকতাকারী কিংবা নাশকতায় মদদদাতারা গ্রেপ্তার হচ্ছে। তাদের কাছ থেকে নাশকতার পেছনে জড়িতদের নাম পেয়ে তালিকায় যুক্ত করা হচ্ছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘নগরীতে নাশকতা এড়াতে সাঁজোয়াযান নিয়ে টহল দিচ্ছে পুলিশ।’

উৎস: বাংলামেইল


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ