• শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ১১:০০ অপরাহ্ন |

চরাঞ্চলে বাড়ছে নৌ-ডাকাতের আতঙ্ক

chilmari-s-4-9-15হাবিবুর রহমান, চিলমারী: কয়েকদিনের প্রবল বর্ষন ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলে কুড়িগ্রামের চিলমারীতে ব্রহ্মপুত্র নদে পানি বৃদ্ধি পেয়ে বন্যায় ডুবে যায় চিলমারী। পানি নেমে না যাওয়ায় এখনো নিন্মাঞ্চল প্লাবিত রয়েছে। চারদিকে থৈ থৈ পানি। দফায় দফায় বন্যায় পানিতে ভাসছে কুড়িগ্রাম জেলার চিলমারী ও সীমান্ত রাজিবপুর উপজেলার বিভিন্ন চরাঞ্চল। তলিয়ে গেছে সবকিছু। দ্বীপের মতো এক টুকরো জেগে থাকা জায়গায় গাদাগাদি করে বাস করছে গৃহপালিত পশুর সঙ্গে বানভাসি মানুষগুলো। কিন্তু এমন নিদারুণ কষ্টের মাঝে ‘মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা’ এর মধ্যে শুরু হয়েছে নৌ ডাকাতদের উপদ্রব। আর তাই শেষ সম্বলটুকু বাঁচাতে রাত জেগে পাহারা দিচ্ছে চরের হাজারও মানুষ। বন্যায় তলিয়ে গেছে আবাদি জমি। তলিয়ে গেছে বসতভিটাও। তবে গোটা চর মিলে জেগে থাকা দুই একটি বাড়ি কিংবা অন্য কোন উঁচু স্থানে আশ্রয় নিয়েছে বানভাসিরা। বন্যায় ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ডাকাতি করে দ্রুত পালাতে পারে বলে এই সময় ভাটির দিকের কয়েকটি ডাকাত দল সক্রিয় হয়ে উঠে। তবে ডাকাতদের প্রতিহত করে চরবাসীর সম্পদ রক্ষায় বিভিন্ন উদ্যোগের কথা জানান পুলিশ প্রশাসন। বন্যার এই দুর্ভোগের সময় নৌ ডাকাতির মতো উপদ্রব যেন না হয়। নির্বিগ্নে  থাকতে পারে সেই প্রত্যাশাই করছে চরাঞ্চলের লাখো মানুষ। সম্প্রতি ঢুষমারা, বড়বেড় চর, বড়চর, অষ্টমীর চর, সন্যাসীকান্ধিচর, কির্তনটারীরচর, নাওশালারচর, ধলাগাছা চর, জিগাবাড়িচর, কাচিরচর, মানুষমারারচরসহ বিভিন্ন চরাঞ্চলে গিয়ে দেখা যায় বানভাসি মানুষের এসব খন্ডচিত্র। ঢুষমারা চরের সানোয়ার,আঃ হাই জানায় এই তো কয়েকদিন আগেই একটি ডাকাত দল ১৯টি গরু লুট করে নিয়ে যায় এসময় তাদের ছোরা গুলিতে সিরাজুল আহত হয়। সন্যাসীকান্ধি চরের আবুল হোসেন জানান, এই চরের চার পাশেই পানি। এখন আমাদের চরে কোরবানির জন্য কিছু ষাড়গরু পালন করা হয়। আর কিছু না নিলেও ডাকাতেরা শুধু বাড়ির সাথে নৌকা লাগিয়ে দিয়ে সব গরু নিয়ে যায়। নৌকা দেখামাত্রই একটি সংকেত বাজানো হয় তখন চরের মানুষ এক হয়ে ডাকাত প্রতিহত করার ব্যর্থ চেষ্টা চালাই। নয়ারহাট, অষ্টমীরচর, চিলমারী ও মোহনগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যানগন জানান, আমার এই সমস্ত চরে রাতে এমনকি দিনেই ডাকাতি হয়। প্রতি বছরই দিনের বেলায় কোন না কোন চরে সিরিয়ালের নৌকা না হয়, জ্বালানী তেলের নৌকা, মালবাহি নৌকাও ডাকাতের হাতে ধরা পড়লে রক্ষা নাই। অনেক আইনশৃঙ্খলা মিটিংএ বলেছি লাভ নেই, পুলিশ আসতে আসতেই কামসারা। এ ব্যাপারে নৌ-থানা (ঢুষমারা জলথানার) অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ রাজু জানান, আমাদের থানায় লোকবল কম, আছে যাতায়াতের নৌকার সমস্যা। তারপরও আমরা শেলো চালিত নৌকা দিয়ে মানুষের যানমালের নিরাপত্তা দিতে সব সময় প্রস্তুত থাকি। তিনি আরো জানান মানুষজনের যানমালের নিরাপত্তার জন্য এলাকায় ওপেন হাউজ ডে সহ আলোচনাও করে যাচ্ছি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ