• বৃহস্পতিবার, ৩০ নভেম্বর ২০২৩, ০৩:৪৯ পূর্বাহ্ন |

যুক্তরাষ্ট্রে সমকামী নাইট ক্লাবে গুলিতে নিহত ৫০

আন্তর্জাতিকআন্তর্জাতিক ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের অরল্যান্ডো শহরে ‘পালস্’ নামে একটি পুরুষ সমকামী নাইটক্লাবে বন্দুকধারীর হামলায় ৫০ জন নিহত হয়েছে। শহরের মেয়র নিহতের সংখ্যা নিশ্চিত করে বলেছেন আহতের সংখ্যা অন্তত ৫৩। যাদের অধিকাংশের অবস্থা আশঙ্কাজনক। এই বন্দুকধারীর নাম ওমর মতিন এবং তার বয়েস ২৯। তিনি আমেরিকান নাগরিক। তার নাম এর আগে কোনো সন্দেহভাজন সন্ত্রাসীর তালিকায় ছিল না।

সিবিএস নিউজ জানাচ্ছে, তার বাড়ি ফ্লোরিডার পোর্ট সেন্ট লুসিতে। সে একজন মার্কিন নাগরিক, এবং তার বাবা-মা আফগান। পুলিশ অবশ্য এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে তাকে সনাক্ত করেনি। তবে এফবিআইয়ের একজন কর্মকর্তা রোনাল্ড হপার বলছেন, ‘আমরা আভাস পাচ্ছি যে লোকটির উগ্রপন্থি ইসলামি আদর্শের দিকে ঝোঁক ছিল, যদিও তা এখনো নিশ্চিত করা যায়নি।’মনে করা হচ্ছে, আক্রমণকারী একাই ছিল এবং সে এই এলাকার স্থানীয় কোনো বাসিন্দা নন।

প্রত্যক্ষদর্শী এবং পুলিশের বর্ণনা থেকে জানা যায়, পালস্ নামের নাইটক্লাবটি শহরের সমকামীদের একটি প্রধান কেন্দ্র। এখানেই স্থানীয় সময় রাত দু’টোর দিকে আক্রমণ চালায় বন্দুকধারী। তার হাতে ছিল দুটি আগ্নেয়াস্ত্র। একটি ছিল এ্যাসল্ট রাইফেল আর অপরটি ছিল হ্যান্ডগান। এছাড়া তার গায়ের সাথে কোনো একটা ‘বিস্ফোরক জাতীয় কিছু’ বাঁধা ছিল।

এর আগে যে বর্ণনা পাওয়া যায় তাতে বলা হয়েছিল, আক্রমণকারী সুইসাইড ভেস্ট বা আত্মঘাতী হামলাকারীরা যে ধরনের বিস্ফোরকভর্তি পোশাক পরে – তা পরা ছিলো। বন্দুকধারী নাইটক্লাবের ভেতরে চারদিকে নির্বিচারে গুলি করতে থাকে এবং কিছু লোককে জিম্মি করে।

প্রথম গুলিবর্ষণের প্রায় তিন ঘণ্টা পর পুলিশ জিম্মিদের উদ্ধারের জন্য নাইটক্লাবের ভেতরে ঢোকার সিদ্ধান্ত নেয়। ভেতরে ঢোকার পর বন্দুকধারীর সাথে পুলিশের গুলিবিনিময় হয়, এবং এক পর্যায়ে পুলিশের গুলিতে বন্দুকধারী নিহত হয়। এরপর পুলিশ আক্রমণকারীর গায়ে বাঁধা বস্তুটির একটি নিয়ন্ত্রিত বিস্ফোরণ ঘটায়।

সূত্র: বিবিসি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আর্কাইভ