• শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০৪:০৬ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
বেঞ্চ ও বারের সুসম্পর্কের মধ্য দিয়ে বিচার ব্যবস্থা সমৃদ্ধ হয়- নীলফামারীতে প্রধান বিচারপতি সৈয়দপুর বিজ্ঞান কলেজ চত্ত্বর থেকে কিশোরের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার  নীলফামারী শহরে অগ্নিকান্ডে ৫ দোকান পুড়ে ছাই জলঢাকায় মিন্টু, কিশোরগঞ্জে রশিদুল, সৈয়দপুরে রিয়াদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত বিএনপি-জামায়াতের ষড়যন্ত্রের বিষদাত ভেঙে দেওয়া হবে: নানক সৈয়দপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভজে পুত্রের জয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য মাউশির ৯ নির্দেশনা ভোটের আগেই জামিন পেলেন চেয়ারম্যান প্রার্থী ফুলবাড়ীতে ৪৮ রোগী পেল ২৪ লাখ টাকার চিকিৎসা সহায়তার চেক ফুলবাড়ীতে চারটি চোরাই গরু উদ্ধার, গ্রেফতার তিন

একটি গরুতে মিলবে এক হাজার কেজি মাংস

গরুসিসি ডেস্ক: গরুর মাংস উৎপাদনে রাজশাহীতে ঘটতে যাচ্ছে বিপ্লব। এ অঞ্চলের সাধারণ দেশি জাতের একটি গরু থেকে মাংস পাওয়া যায় মাত্র ১০০ থেকে ১৫০ কেজি। কিন্তু নতুন যে জাতের গরু পালন শুরু হয়েছে তাতে একটি গরু থেকে পাওয়া যাবে ৮০০ থেকে এক হাজার কেজি মাংস।

এ জন্য গরুর শরীরে বাড়তি কোনো হরমোন প্রয়োগের প্রয়োজন পড়বে না। দরকার হবে না গরুকে স্টেরয়েড গ্রুপের নিষিদ্ধ ওষুধ সেবনেরও। গবাদিপশুর সাধারণ খাদ্য খেয়েই মোটাতাজা হবে গরু। নতুন জাতের এই গরু উৎপাদনের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে স্থানীয় প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর। ইতিমধ্যে রাজশাহীর তিন উপজেলায় কাজ শুরুও করেছে সরকারি এ দপ্তরটি।

প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর রাজশাহীর অতিরিক্ত জেলা কর্মকর্তা ড. জুলফিকার মো. আখতার হোসেন জানিয়েছেন, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের মাংস জাতের গরু উৎপাদন প্রকল্পের আওতায় জেলার পবা, পুঠিয়া ও চারঘাট উপজেলার ১৫০ জন খামারির বাড়িতে বেড়ে উঠছে আমেরিকার ব্রাহামা জাতের গরু।

আমেরিকায় মূল জাতের এই গরুর এক একটির ওজন হয়ে থাকে এক হাজার ৮০০ থেকে দুই হাজার কেজি পর্যন্ত। তবে বাংলাদেশি গাভীকে এই জাতের গরুর সিমেন দেওয়া হলে জন্ম নেওয়া এঁড়ে বা বকনার ওজন পর্যাপ্ত বয়সে হবে ৮০০ থেকে এক হাজার কেজি। তাই প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের নির্বাচিত খামারিদের গাভীকে মাত্র ৩০ টাকার বিনিময়ে এই জাতের গরুর সিমেন দেওয়া হচ্ছে।

তিনি আরো জানান, মাংসের উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর থেকে ২০১৩ সালের অক্টোবরে প্রকল্পটি রাজশাহী আসে। সেসময় জেলার তিনটি উপজেলা নির্ধারণ করে প্রত্যেক উপজেলায় ৫০ জন করে খামারি নির্বাচন করতে বলা হয়।

নির্দেশনা পেয়ে রাজশাহী প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা প্রকল্পের জন্য জেলার পবা, পুঠিয়া ও চারঘাট উপজেলাকে নির্ধারণ করেন। সেসময় তারা প্রাথমিকভাবে প্রতিটি উপজেলা থেকে ১৩০ জন করে খামারির তালিকা করেন। পরবর্তীতে যাচাই-বাছাই করে প্রতি উপজেলায় ৫০ জন খামারিকে প্রকল্পের সুবিধা দেওয়ার জন্য নির্বাচিত করা হয়। এরপর ২০১৪ সালের প্রথম থেকে এই তিন উপজেলায় প্রকল্পটির কাজ শুরু হয়।

প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের দেওয়া তথ্য মতে, গাভী প্রজননের সময় হলে নির্বাচিত খামারিরা স্থানীয় প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তাকে অবহিত করেন। তারপর স্থানীয় প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা অথবা তার মাঠকর্মীরা ওই গাভীকে আমেরিকার ব্রাহামা জাতের গরুর সিমেন দিয়ে আসেন। এ জন্য খামারিদের কাছ থেকে নেওয়া হয় মাত্র ৩০ টাকা।

জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা নিজাম উদ্দীন জানান, তিন উপজেলার ১৫০ জন খামারির প্রায় ৫০০ গাভীকে এই প্রকল্পের আওতায় আনা হয়েছে। ২০১৪ সালে প্রকল্পটি চালু হওয়ার পর এরই মধ্যে প্রায় তিন শতাধিক বাছুর-বকনার জন্ম হয়েছে ব্রাহামা জাতের। এগুলোর বর্তমান বয়স ৫ থেকে ৭ মাস। দেড় বছর বয়স হলে বাছুরগুলো যখন এক একটি এঁড়ে হয়ে উঠবে, তখন তার ওজন হবে ৮০০ থেকে এক হাজার কেজি। যার প্রতিটির বাজার মূল্য হবে সর্বনি¤œ আড়াই লাখ টাকা।

তিনি আরো জানান, খামারিদের এই প্রকল্পের আওতায় আনার আগে তাদের একটি শর্তও দেওয়া হয়েছে। আর তা হলো, দেড় বছর বয়সের আগে গরুগুলো বিক্রি করতে পারবেন না তারা। তারপরেও অনিবার্য কারণে গরু বিক্রি করতে হলে অবহিত করতে হবে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরকে। পরীক্ষামূলক এই প্রকল্পটির সফলতা বিবেচনা এবং একইসঙ্গে খামারিদের আর্থিকভাবে লাভবান করতেই এ ধরনের শর্ত দেওয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

জেলার পুঠিয়া উপজেলার পানপাড়া গ্রামের খামারি শাহাদত হোসেনের দুটি গাভী রয়েছে এই প্রকল্পের আওতায়। তিনি জানান, তার দেশি জাতের একটি গাভী থেকে জন্ম নেওয়া আমেরিকার ব্রাহামা জাতের একটি বাছুরের বর্তমান বয়স পাঁচ মাস। অথচ এখনই বাছুরটির ওজন ৯৪ কেজি।

চারঘাট উপজেলার পরানপুর গ্রামের খামারি দিলীপ চন্দ্র জানান, তারও তিনটি গাভী রয়েছে এই প্রকল্পের আওতায়। দুটি গাভী থেকে জন্ম নিয়েছে ব্রাহামা জাতের দুটি বাছুরও। দুই মাস আগে দুই মাস বয়সি একটি বাছুরের ওজন মেপে ছিলেন প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা। তখন বাছুরটির ওজন পাওয়া যায় ৬০ কেজি। আর ওই বাছুরটির জন্ম হয়েছিল ২৫ কেজি ওজনে।

পবা উপজেলার বসড়ি হরিপুর গ্রামের শাহীন আলীরও দুটি গাভী রয়েছে এই প্রকল্পের আওতায়। তিনি বলছিলেন, বাছুর জন্ম নেওয়ার পর দেড় বছরের মধ্যে বিক্রি করা যাবে না, এমন শর্তের কারণে প্রথমে তিনি প্রকল্পে অংশ নেওয়া নিয়ে দোটানার মধ্যে ছিলেন। পরবর্তীতে তিনি এই প্রকল্পের অন্তর্ভুক্ত হয়ে খুব লাভবান হয়েছেন বলেই এখন মনে করেন।

তিনি বলেন, গ্রামে এখন তার বাছুরের চেয়ে মোটাতাজা বাছুর আর কারো নেই। তার বাছুর দেখেই এখন অন্যান্য খামারিরা ঈর্ষান্বিত।

পবা উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. ইসমাইল হক জানান, খামারিদের লাভবান করতেই সরকার এই প্রকল্পটি চালু করেছে। তাই গাভীগুলো গর্ভবতী হওয়া থেকে শুরু করে বাছুরের বেড়ে ওঠা পর্যন্ত সব সময়ই খোঁজ-খবর রাখা হয়। গাভী-বাছুরগুলো অসুস্থ হলে প্রাণিসম্পদ বিভাগ থেকে চিকিৎসাও দেওয়া হয় বিনামূল্যে। কেননা, প্রকল্পের আওতায় থাকা গরুগুলোকে নিজেদেরই সম্পদ মনে করে প্রাণিসম্পদ বিভাগ।

পুঠিয়ার প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. আতিকুর রহমান জানান, এ উপজেলায় প্রায় শতাধিক বাছুরের জন্ম হয়েছে ব্রাহামা জাতের। এসব বাছুর দেখে এখন বহু খামারি নতুন করে প্রকল্পের আওতায় আসতে চাইছেন। কেননা, দাম খুব বেশি হওয়ায় বাইরে পশু চিকিৎসকদের কাছে ব্রাহামা জাতের গরুর সিমেন কিনতে পাওয়া যায় না। শুধু খামারিদের লাভবান করার স্বার্থে সরকার এ খাতে ভর্তুকি দিয়ে আমেরিকা থেকে সিমেনগুলো আমদানি করছে।

জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা নিজাম উদ্দীন বলেন, ব্রাহামা জাতের গরুর ওজন খুব বেশি হওয়ায় এ জাতের গরু থেকে তেমন দুধ উৎপাদন হয় না। শুধু মাংসের জন্যই এ গরু বিখ্যাত। তাই বকনা না হয়ে বাছুর জন্ম নিলেই খামারিরা বেশি খুশি হন। তারপরেও বকনা জন্ম নিলেও ক্ষতি নেই। কারণ ব্রাহামা জাতের বকনাগুলো গাভী হয়ে ওঠার পর একই জাতের এঁড়ের সঙ্গে মিলন হলে জন্ম নেওয়া গরুর ওজন হবে আরো বেশি। যদিও এখন দেশি জাতের গাভী থেকে জন্ম নেওয়া এক একটির ওজন হবে ৮০০ থেকে এক হাজার কেজি।

ব্রাহামা জাতের গরুর মাংসের পুষ্টিগুণ সম্পর্কে তিনি বলেন, অত্যন্ত মোটাতাজা গরু দেখে যে কেউ মনে করতে পারেন এর মাংসে তেমন পুষ্টি নেই। কিন্তু বিষয়টি মোটেও তেমন নয়। এ জাতের গরুকে স্টেরয়েড জাতীয় নিষিদ্ধ ওষুধ খাইয়ে মোটাতাজা করার প্রয়োজন পড়ে না। গরীর শরীরে বাড়তি কোনো হরমোন প্রয়োগেরও দরকার নেই। গবাদি পশুর সাধারণ খাবার খেয়েই গরুগুলো মোটাতাজা হয়ে ওঠে। তাই এর পুষ্টি গুণও অটুট থাকে।

রাজশাহীর তিন উপজেলায় এখন প্রায় পাঁচ শতাধিক গরু ব্রাহামা জাতের বাচ্চা প্রসব করেছে। এর মধ্যে প্রায় ৩০০টি বাছুর এবং বাকিগুলো বকনা।

সংশ্লিষ্টরা আশা করছেন, এসব বাছুর ও বকনাগুলো বেড়ে ওঠার পর কয়েক বছর পর এমন পরিস্থিতি তৈরি হবে, যখন আর সিমেন আমদানি করে প্রজনন উপযোগী গাভীকে দেওয়ার প্রয়োজন হবে না। প্রাকৃতিক নিয়মেই একই জাতের গরুর সঙ্গে সঙ্গম হয়ে জন্ম নেবে হাজার হাজার ব্রাহামা জাতের গরু। তখন বিপ্লব ঘটবে মাংস উৎপাদনে। আর ব্যাপকভাবে লাভবান হবেন খামারিরা।

রাইজিংবিডি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আর্কাইভ