• শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১২:৪৫ অপরাহ্ন |

সৈয়দপুরের বীর মুক্তিযোদ্ধা একরামুল হক প্রতারণার শিকার

সিসি নিউজ।। মরণব্যাধি ক্যান্সারে আক্রান্ত নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডের সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. একরামুল হকের কাছ থেকে প্রতারণার মাধ্যমে সাড়ে পাঁচ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে একটি প্রতারক চক্র। তাঁকে চিকিৎসার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে নগদ আর্থিক সহায়তা দেয়ার কথা বলে প্রতারকচক্র তাঁর কাছ থেকে মোবাইল ব্যাংকিং নগদের মাধ্যমে ওই পরিমাণ টাকা হাতিয়ে নেয়। এ ঘটনায় প্রতারণার শিকার বীরমুক্তিযোদ্ধা একরামুল হক আজ সোমবার প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে সৈয়দপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেন।

থানায় দেয়া অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, ঘটনার দিন  সোমবার সকাল সাড়ে ১০ টায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের হিসাবরক্ষক পরিচয় দিয়ে তামিম নামের জনৈক ব্যক্তি ক্যান্সারে আক্রান্ত সৈয়দপুরের বীরমুক্তিযোদ্ধা মো. একরামুল হকের মুঠোফোনে কল দিয়ে কথা বলেন। এ সময় তিনি মুক্তিযোদ্ধাকে জানান আপনার অসুস্থতার বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় অবগত রয়েছে।
এ সময় তামিম পরিচয় দেয়া ওই প্রতারক চক্রের সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধাকে জানান ত্রাণ ও দুর্যোগ মন্ত্রণালয় থেকে আজই (সোমবার) বিকেলের মধ্যে চিকিৎসার জন্য ছয় লাখ টাকা পাবেন। আর এ জন্য ওই মন্ত্রণালয়ের একটি ফরম কিনতে হবে। ফরম কেনা বাবদ আপনাকে নগদে সাড়ে ৫ হাজার টাকা পাঠাতে হবে। এ সময় প্রতারক চক্রের ওই সদস্য তার বস শামিম মোরশেদ নামে এক ব্যক্তির মোবাইল নম্বর দিয়ে তার সঙ্গে কথা বলার জন্য বলেন। পরে তাদের কথা মতো বীরমুক্তিযোদ্ধা একরামুল হক ত্রাণ ও দুর্যোগ মন্ত্রণালয়ের ফরম কেনার জন্য ০১৭৪০৯২১৪৬৯ নম্বর মোবাইল থেকে হতে চার হাজার টাকা এবং ০১৮২১০৫৪৫৫৫ নম্বর থেকে এক হাজার পাঁচশত টাকাসহ সর্বমোট সাড়ে ৫ হাজার টাকা ০১৬১৩৬৩১৪৫৮ নম্বর নগদ অ্যাকাউন্টে দেন। পরে  তাদের ওই মুঠোফোন নম্বরে কল দেওয়া হলে তা বন্ধ পান। ফলে তিনি প্রতারণার শিকার হয়েছেন বিষয়টি বুঝতে পেয়ে ক্যান্সার আক্রান্ত বীরমুক্তিযোদ্ধা একরামুল হক মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন।
বীরমুক্তিযোদ্ধা একরামুল হক তিনি জানান, অর্থাভাবে চিকিৎসা করাতে পারছিনা। বিভিন্নজনের কাছে ধারদেনা করে উন্নত চিকিৎসার জন্য ভারতে যাওয়ার চেষ্টা করছি। কিন্তু প্রতারকরা আমাকেও ছাড়ল না। এ ঘটনায় তিনি সৈয়দপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।
সৈয়দপুর থানার ডিউটি অফিসার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. সাহিদুর রহমান বলেন, ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইস ব্যবহারের মাধ্যমে প্রতারক চক্রকে শনাক্তের চেষ্টা চলছে। আশা করি দ্রুততম সময়ের মধ্যে তাদেরকে আইনের আওতায় আনা সম্ভব হবে।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ