• শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১০:৪৮ পূর্বাহ্ন |

ঢাবির শিক্ষার্থীর মৃত্যু: নীলফামারীর বাড়িতে শোকের মাতম

সিসি নিউজ ।। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র লিমন কুমার রায়ের (২০) মৃত্যুতে শোকের মাতম পড়েছে তাঁর বাড়িতে। সে নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার মাগুরা ইউনিয়নের দোলাপাড়ার রিক্সাচালক প্রভাশ চন্দ্র রায়ের ছেলে। লিমন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা বিভাগের ৩য় বর্ষের ছাত্র ছিলেন।

বুধবার (২৩ নভেম্বর) সকাল ১০টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলের ১০তম তলার ছাদ থেকে পড়ে যায় লিমন। সহপাঠিরা গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে আসা হয়। পরে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, তবে কীভাবে সে ছাদ থেকে পড়ে গেছে তা প্রাথমিক ভাবে জানা যায়নি।

লিমনের স্কুল শিক্ষক মিথুন কুমার রায় জানান, দরিদ্র বাবার সন্তান লিমন কুমার রায় ছিল মেধাবী। সে বাড়ির পাশে সিঙ্গেরগাড়ী দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি এবং রংপুর কারমাইকেল কলেজ থেকে এইচএসসিতে জিপিএ-৫ পেয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়। এলাকায় নম্র, ভদ্র ও মেধাবী ছাত্র হিসেবে লিমনের পরিচিতি রয়েছে। তাঁর মৃত্যুতে পুরো গ্রামে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

নিহত ওই ছাত্রের চাচা নীলফামারী আদালতের শিক্ষানবীশ এ্যাডভোকেট নারায়ণ চন্দ্র জানান, দুই ছেলে ও এক মেয়ের মধ্যে লিমন সবার বড়। তাঁর বাবা রিক্সা চালিয়ে ও মা নীলা রানী রায় অন্যের জমিতে কৃষাণীর কাজ করে যে আয় হয়, তা দিয়ে সংসারের ভরণপোষন করেন। তিনি বলেন, ভাতিজা লিমন মেধাবী হওয়ায় এলাকার মানুষজনও তাঁর লেখাপড়ার খরচ চালাতে সহযোগিতা করে আসছে। লিমনের মৃত্যুতে এখন নির্বাক হয়ে রয়েছে তাঁর মা।

বুধবার বিকেল সরেজমিনে নিহত লিমনের বাড়িতে গিয়ে কথা হয় বাবা প্রভাশ চন্দ্র রায়ের সাথে। তিনি কাঁদতে কাঁদতে জানান, আমার লিমন এভাবে আমাদেরকে ছেড়ে চলে যেতে পারে না। এর পেছনে কোন কারণ থাকতে পারে। তিনি নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠ তদন্তের মাধ্যমে প্রকৃত ঘটনা উদঘাটনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন জানান।

সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে কথা হয় কিশোরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রাজীব কুমার রায়ের সাথে। তিনি জানান, পরিবারের পক্ষ্য থেকে এ বিষয়ে কোন অভিযোগ পাইনি। এদিকে ঢাকা থেকে লিমনের মৃত্যুর বিষয়ে কোন কিছু জানানো হয়নি বলে জানান তিনি।

জগন্নাথ হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. মিহির লাল সাহা বলেন, আজ সকাল ১০টার দিকে সন্তোষ চন্দ্র ভট্টাচার্য ভবন থেকে ওই শিক্ষার্থী পড়ে যায়। শব্দ শুনে হলের শিক্ষার্থীরা তাকে হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Comments are closed.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ