• শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ১১:২৮ অপরাহ্ন |

‘মায়ের কাছে লাশ হয়ে ফিরলো লিমন’

সিসি নিউজ।। ‘পরীক্ষা শেষ করে বাড়িতে আসছি মা’- ঘটনার দুই দিন আগে মোবাইল ফোনে মাকে এমন কথাই বলেছিল লিমন কুমার রায়। বৃহস্পতিবার ছেলে বাড়িতে এলো ঠিকই কিন্তু লাশ হয়ে। সন্ধ্যায় নিজ বাড়ির আঙ্গিনায় গড়াগড়ি দিয়ে বিলাপ করে এমনটিই বলছে মা নীলা রানী রায়। তাঁর এ কান্নায় উপস্থিত সকলেই আটকাতে পারেনি নিজের চোখের জল।

গতকাল বুধবার (২৩ নভেম্বর) সকাল ১০টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলের ১০ তলার ছাদ থেকে পড়ে যান ঢাবি শিক্ষার্থী লিমন। নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার মাগুরা ইউনিয়নের দোলাপাড়ার রিকশাচালক প্রভাশ চন্দ্র রায় ও কৃষাণী নীলা রানী রায় দম্পতির ছেলে লিমন। ঢাবির শিক্ষা ও গবেষণা বিভাগের তৃতীয় বর্ষের (২০১৯-২০ সেশন) ছাত্র ছিলেন।

এদিকে লিমনের মরদেহ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়না তদন্ত শেষে বৃহস্পতিবার রাত সোয়া ৮টায় গ্রামের বাড়িতে পৌছেছে। পরে রাতেই মাগুড়া দোলাপাড়া শ্মশানে তাঁর শেষকৃত অনুষ্ঠিত হবে বলে লিমনের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে।

প্রতিবেশীরা জানান, ঢাকা শহরে রিকশা চালিয়ে ছেলেকে পড়াশোনা করিয়েছেন বাবা প্রভাশ চন্দ্র রায়। বাবার কষ্টের মান রেখে ছেলে ভর্তি হয়েছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। বাবা-মায়ের স্বপ্ন ছিল অভাবের সংসারে সুখ আসবে ছেলের হাত ধরে। কিন্তু ছেলে লিমন কুমার রায়ের (২০) অকাল মৃত্যুর সংবাদে সব স্বপ্ন যেন নিমেষেই শেষ হয়ে গেল তাঁদের। লিমনকে হারিয়ে ওই পরিবারটি যেমন নির্বাক, তেমনি গ্রামবাসীরাও হতবাক।

লিমনের বাবা প্রভাশ চন্দ্র রায় কাঁদতে কাঁদতে বলেন, ‘আমার লিমন এভাবে আমাদেরকে ছেড়ে চলে যেতে পারে না। এর পেছনে কোনো কারণ থাকতে পারে।’ সে থাকতো জগন্নাথ হলে ৬ষ্ঠ তলায় কিন্তু ১০ম তলায় সে কেন যাবে? এ সময় তিনি নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে প্রকৃত ঘটনা উদ্‌ঘাটনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন জানান।

লিমনের চাচী অনিতা রানী রায় বলেন, ‘দুই ছেলে ও এক মেয়ের মধ্যে লিমন সবার বড়। তাঁর ছোট ভাই সুমন রায় কিশোরগঞ্জের ব্রাইটন কিন্ডারগার্টেন স্কুল থেকে এবারে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেবে। ছোট বোন অর্পিতা রায় পিংকি স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চতুর্থ শ্রেণীতে পড়ে। তাঁর বাবা রিকশা চালিয়ে ও মা নীলা রানী রায় অন্যের জমিতে কৃষাণীর কাজ করে যে আয় হয়, তা দিয়ে সংসারের ভরণপোষণ করেন।’ লিমন মেধাবী হওয়ায় এলাকার মানুষজনও তাঁর লেখাপড়ার খরচ চালাতে সহযোগিতা করে আসছিল।

কিশোরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রাজীব কুমার রায় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় জানান, ‘ নিহত লিমনের পরিবারের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে কোনো অভিযোগ পাইনি। এদিকে ঢাকা থেকে লিমনের মৃত্যুর বিষয়ে কোনো কিছু জানানো হয়নি।’


আপনার মতামত লিখুন :

Comments are closed.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ