• শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ১০:২৯ অপরাহ্ন |

গভীর নলকুপের পানির নীচে আলু ও সরিষা ক্ষেত

জয়পুরহাট প্রতিনিধি।। জয়পুরহাট সদর উপজেলার বম্বু-ধারকী পাথার এলাকায় গভীর নলকুপের পানির নীচে তলিয়ে রয়েছে সদ্য রোপা আলু ও সরিষা ক্ষেত। নলকূপের ঘরের তালা ভেঙ্গে বৈদ্যুতিক সেচ পাম্প চালু করে ডুবিয়ে এ ক্ষয়ক্ষতি করেছে দূর্বৃত্তরা।

গত ২৪ নভেম্বর রাতের কোন এক সময় এ ঘটনা ঘটিয়েছে অজ্ঞাতরা। এতে সম্পূর্নরুপে নষ্ট হয়েছে বেশ কয়েকজন দরিদ্র কৃষকের ৮ থেকে ১০ বিঘা জমির আলু ও সরিষা ক্ষেত। ধারদেনা করে অনেক ধকল সহ্য করে আলু রোপন ও সরিষা বুনলেও তা নষ্ট হওয়ায় পথে বসার উপক্রম হয়েছে ক্ষতিগ্রস্থ দরিদ্র কৃষকদের।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, জয়পুরহাট সদর উপজেলার ধারকী গ্রামের পার্শ্ববর্তী ধারকী-বম্বু পাথার পাড়া গ্রামের ফসলী মাঠের বিস্তীর্ন এলাকা জুরে সদ্য রোপন করা আলু ও সরিষা ক্ষেত। একই মাঠের গভীর নলকূপের অতিরিক্ত পানিতে ডুবে সয়লাব হয়েছে অনেক আলু ও সরিষা রোপন করা জমি। এতে ব্যাপক লোকসানে পরবেন বলে জানান ভূক্তভোগীরা।

ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের মধ্যে একই গ্রামের ইসমাইলের ছেলে এনামূল প্রায় দেড় বিঘা, মৃত মেজাম্মেল হোসেনের ছেলে তাইজুল ইসলাম ২ বিঘা ও আকরাম হোসেনের ছেলে নেজাম উদ্দিন প্রায় ২ বিঘা জমিতে আলু রোপন করেন। এ ছাড়া আব্দুল হামিদের ছেলে গোলাম রব্বানী সরিষা বুনেন প্রায় আধা বিঘা জমিতে।

এসব কৃষকরা অভিযোগ করে জানান, গভীর নলকূপের পানিতে ডুবে চড়া দামে কেনা সার, আলু ও সরিষা বীজ সম্পূর্নরুপে পচে নষ্ট হয়েছে। এ ছাড়া জমি চাষ ও দিন মজুরী খরচসহ সব মিলিয়ে বর্তমান বিঘা প্রতি প্রায় ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা লোকসান হয়েছে । আর ফসল ঘরে তোলার হিসাব কষলে বিঘা প্রতি লোকসান হবে প্রায় দেড় লাখ টাকা। সে হিসাবে গভীর নলকুপের পানিতে ডুবে ৭ থেকে ১০ বিঘা জমির তাৎক্ষনিক বা বর্তমান লোকসান হবে প্রায় আড়াই থেকে ৩ লাখ টাকা এবং উপাদনের হিসাবে প্রায় ১০/১১ লাখ টাকার লোকসান হবে বলে জানান ভূক্তভোগীরা।

এ নিয়ে ওই গভীর নলকূপের নৈশ্য প্রহরী সহিদুল ইসলাম জানান, গত ২৪ নভেম্বর সন্ধ্যায় এই মাঠের গভীর নলকুপের ঘর বন্ধ করে গভীর নলকুপ মালিক ও তিনি রাতের খাবার খেতে নিজ নিজ বাড়ি চলে যান । রাতের খাবার খেয়ে ফিরে এসে তিনি দেখেন যে, গভীর নলকুপ ঘরের তালা ভেঙ্গে বৈদ্যুতিক সেচ পাম্প চালিয়ে দিয়ে দূর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। চালু হওয়া সেচ পাম্পের বিরতিহীন পানিতে ডুবে যায় সদ্য রোপন করা ৭ থেকে ১০ বিঘা আলু ও সরিষা ক্ষেত।

এ অবস্থা দেখে তিনি খবর দেন তার মালিককে। গভীর নলকুপ মালিকসহ ভূক্তভোগীরা পুলিশ ও কৃষি বিভাগকে বিষয়টি জানালে পুলিশ ও কৃষি বিভাগের সদস্যরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। গভীর নলকূপটির মালিকের ছোট ভাই জুয়েল রানা জানান, তারা এ ব্যাপারে আইনের আশ্রয় নেবেন।

অন্যদিকে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহনের আশ্বাস দেন কৃষি কর্মকর্তা। জয়পুরহাট সদর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপ সহকারী কৃষি কর্মকর্তা উম্মে হাবিবা সুলতানা বলেন, তিনি ঘটানস্থল পরিদর্শন করে তদন্ত করছেন। কৃষকদের ক্ষয়ক্ষতির পরিমান নিরুপন করে প্রতিবেদন তৈরী করে তা উর্দ্দতন কর্তৃপক্ষের কাছে দাখিল করবেন।

জয়পুরহাট সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সিরাজুল ইসলাম জানান, ‘ খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে, তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে।’


আপনার মতামত লিখুন :

Comments are closed.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ