• শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ১১:০০ অপরাহ্ন |

নীলফামারী পাসপোর্ট কার্যালয়ে দুদকের অভিযানে পরিচ্ছন্নতা কর্মী আটক

সিসি নিউজ।। নীলফামারী পাসপোর্ট কার্যালয়ে দুদকের অভিযানে নগদ ৫৯ হাজার ১৩৭ টাকাসহ রমি কুমার দাস (২৭) নামে এক পরিচ্ছন্নতা কর্মী আটক হয়েছে। সোমবার বেলা ১১টার থেকে দুর্নীতি দমন কমিশন রংপুর কার্যালয়ের উপ-সহকারী পরিচালক এ কে এম নূরে আলম সিদ্দিকীর নেতৃত্বে চার সদস্যের দল তাকে আটক করে।

পরে বেলা তিনটার দিকে জব্দকৃত টাকা এবং আটক রমি কুমার দাসকে পাসপোর্ট কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক এ কে এম মোতাহার হোসেনের জিন্মায় দিয়ে অভিযান সমাপ্ত করেন। অভিযানকালে রমি কুমার দাসের কাছ থেকে পাসপোর্ট সংক্রান্ত ২২টি কাগজপত্র উদ্ধার হয়।

এ ঘটনায় দুদকের উপ-সহকারী পরিচালক বলছেন, এটি অবৈধ অর্থ, একজন পরিচ্ছন্নতা কর্মীর কাছে এত টাকা থাকার কথা নয়। অপর দিকে অভিযুক্ত রমি কুমার দাস বলছেন, এটি তাদের কার্যালয়ের জেনারেটর মেরামতের জন্য সোনালী ব্যাংক থেকে সোমবার সকালে উত্তোলন করা টাকা। ব্যাংক থেকে কার্যালয়ে ফেরার সঙ্গেই দুদক তাকে তল্লাশী করে।

দুর্নীতি দমন কমিশন রংপুর কার্যালয়ের উপ-সহকারী পরিচালক এ কে এম নূরে আলম সিদ্দিকী জানান, ঢাকার প্রধান কার্যালয়ের নির্দেশে এই অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। দুদকের চার সদস্যের ওই দল নীলফামারী আঞ্চলিক পাসপোর্ট কার্যালয়ে এসে গোপনে প্রায় দেড় থেকে দুই ঘণ্টা পর্যবেক্ষণ করে।

পাসপোর্ট করতে আসা বিভিন্ন মানুষজনের সঙ্গে কথা বলে। পাসপোর্ট করতে আসা মানুষজন তাদের হয়রানীর কথা বলেন। এরপর বেলা ১১টার দিকে অভিযান শুরু করা হয়। অভিযানে পরিচ্ছন্নতা কর্মী রমি কুমার দাসকে আটক করে তার কাছ থেকে ৫৯ হাজার ১৩৭ টাকা জব্দ করা হয়। তার কাছে পাসপোর্ট সংক্রান্ত ২২টি কাগজপত্র পাওয়া যায়।

তিনি বলেন, ‘একজন পরিচ্ছন্নতা কর্মীর কাছে এত টাকা থাকার কথা নয়, এটা অবৈধ অর্থ। তাকে আমরা আটক করে আঞ্চলিক পাসপোর্ট কার্যালয়ের সহকারী পরিচালকের জিম্মায় রেখেছি। এ বিষয়ে দুদকের প্রধান কার্যালয়কে জানানো হবে। প্রধান কার্যালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী পরবর্তী আইনী প্রক্রিয়া চালানো হবে।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে অভিযুক্ত পরিচ্ছন্নতা কর্মী রমি কুমার দাস তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের সত্যতা অস্বীকার করে বলেন, ‘আমাদের পাসপোর্ট কার্যালয়ের জেনারেটর মেরামতের জন্য চেক মূলে সোমবার সকাল ১১টার দিকে সোনালী ব্যাংক থেকে ৫৫ হাজার ৪৫৪ টাকা উত্তোলন করে কার্যালয়ে আসলে দুদকের দল আমাকে আটক করে। আমি তাদের বলেছি, কিন্তু তারা আমার কথা বিশ্বাস করেননি।’ অবশিষ্ট তিন হাজার ৬৮৩ টাকা তার নিজস্ব বলে দাবি করেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নীলফামারী আঞ্চলিক পাসপোর্ট কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক এ কে এম মোতাহার হোসেন বলেন, ‘দুদকের টিম সকাল ১১টার দিকে আমাদের কার্যালয়ে অভিযান চালায়। এসময় তারা কার্যালয়ের তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের জিজ্ঞাসাবাদ করেন। কার্যালয়ের পরিচ্ছন্নতা কর্মী রমি কুমার দাসকে আটক করেন। কেউ অপরাধ করলে তার দায় তাকে নিতে হবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘রমি কুমার দাস আউটসের্সিংএ পরিচ্ছন্নতা কর্মীর কাজ করেন। তার কম্পিউটার জানা আছে। জনবল সংকটে তাকে বিভিন্ন সময়ে কাজে লাগানো হয়।’


আপনার মতামত লিখুন :

Comments are closed.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ