• শুক্রবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২৩, ০৭:৪২ অপরাহ্ন |

জাহাঙ্গীর আলমকে স্ত্রীর তালাকের নোটিশ

সিসি নিউজ ডেস্ক।। গাজীপুর সিটি করপোরেশনের আলোচিত সাবেক মেয়র জাহাঙ্গীর আলমকে আওয়ামী লীগ থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কারের পর তাঁর সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদ চেয়ে স্ত্রীর দেওয়া তালাকের নোটিশ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে।

জাহাঙ্গীরের স্ত্রী কাজী রাজিয়া সুলতানা গত ৩০ এপ্রিল তালাকের নোটিশটি পাঠিয়েছেন। নোটিশে তিনি মানসিক নির্যাতন, অত্যাচার ও ভরণপোষণ না দেওয়ার অভিযোগ তুলেছেন জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে। ১৯৬১ সালের মুসলিম পারিবারিক আইন অনুযায়ী, নোটিশ পাঠানোর পর সম্পর্কের উন্নতি না হলে ৯০ দিন পর চূড়ান্তভাবে তালাক কার্যকর হবে।

নোটিশের অনুলিপি গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়রকে দেওয়া হয়েছে। নোটিশে সাক্ষী হিসেবে আছেন কাজী তৈয়াবুর রহমান ও কাজী নাজমুস সাকিব।

নোটিশের বিষয়ে জানতে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র জাহাঙ্গীর আলমকে ফোন করা হলে তিনি রিসিভ করেননি। তবে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র নোটিশের সত্যতা স্বীকার করেছেন।

দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে গাজীপুর সিটির মেয়র পদে প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন জাহাঙ্গীর আলম। কিন্তু একটি খেলাপি প্রতিষ্ঠানের ঋণের জামিনদার হওয়ায় তাঁর প্রার্থিতা বাতিল হয়।  উচ্চ আদালতে আপিল করেও প্রার্থিতা ফিরে পাননি তিনি। জাহাঙ্গীর প্রার্থী হতে না পারলেও তাঁর মা জায়দা খাতুন সিটি মেয়র পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন।

পুত্রবধূর দেওয়া নোটিশের বিষয়ে জানতে চাইলে জাহাঙ্গীরের মা জায়দা বলেন, ‘আমার ছেলের বউ কোথায় থাকল, মেয়ের জামাই কোথায় থাকল—এগুলো আমার দেখার বিষয় না।’

মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের নিয়ে কটূক্তির অভিযোগে ২০২১ সালের ২৫ নভেম্বর জাহাঙ্গীর আলমকে প্রথমে গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং পরে দলের প্রাথমিক সদস্যপদ থেকে আজীবনের জন্য বহিষ্কার করা হয়। পরে অনিয়ম ও দুর্নীতির নানা অভিযোগে মেয়রের পদ থেকেও তাঁকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

গত রোববার (১৪ মে) আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে সম্পাদকমণ্ডলীর বৈঠকে বহিষ্কারের সুপারিশ করা হয়। এরপর গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় জাহাঙ্গীর আলমকে স্থায়ীভাবে আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কারের তথ্য এক চিঠিতে জানান দলের দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া।

এর পরপরই ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে স্ত্রী কাজী রাজিয়া সুলতানার তালাকের নোটিশটি ছড়িয়ে পড়ে।

গাজীপুর সিটির ভারপ্রাপ্ত মেয়র আসাদুর রহমান কিরন বলেন, ‘নোটিশটি সঠিক। সিটি করপোরেশনের আইন শাখায় এসংক্রান্ত চিঠি পৌঁছেছে।’

উৎস : আজকের পত্রিকা


আপনার মতামত লিখুন :

Comments are closed.

আর্কাইভ