• শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০৪:০৯ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
বেঞ্চ ও বারের সুসম্পর্কের মধ্য দিয়ে বিচার ব্যবস্থা সমৃদ্ধ হয়- নীলফামারীতে প্রধান বিচারপতি সৈয়দপুর বিজ্ঞান কলেজ চত্ত্বর থেকে কিশোরের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার  নীলফামারী শহরে অগ্নিকান্ডে ৫ দোকান পুড়ে ছাই জলঢাকায় মিন্টু, কিশোরগঞ্জে রশিদুল, সৈয়দপুরে রিয়াদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত বিএনপি-জামায়াতের ষড়যন্ত্রের বিষদাত ভেঙে দেওয়া হবে: নানক সৈয়দপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভজে পুত্রের জয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য মাউশির ৯ নির্দেশনা ভোটের আগেই জামিন পেলেন চেয়ারম্যান প্রার্থী ফুলবাড়ীতে ৪৮ রোগী পেল ২৪ লাখ টাকার চিকিৎসা সহায়তার চেক ফুলবাড়ীতে চারটি চোরাই গরু উদ্ধার, গ্রেফতার তিন

সৈয়দপুরে ক্লুলেস হত্যা মামলার রহস্য উদ্ঘাটন: ঢাকা থেকে গ্রেপ্তার-৩

সিসি নিউজ।। নীলফামারীর সৈয়দপুরে যাত্রীবেশে চেতনানাশক খাইয়ে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা চালক রমজান আলী (৪৬) হত্যার ক্লুলেস মামলার তিন আসামীকে আধুনিক তথ্য ও প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গত ২৭ অক্টোবর ঢাকার উত্তরা এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করেছে থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আহমদ উল্লাহ হক প্রধানের নেতৃত্বে সৈয়দপুর থানা পুলিশ সদস্যা।

গ্রেপ্তারকৃতরা হচ্ছে, কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার হোকডাঙ্গা কুমারপাড়ার (জোবেরবাজার) মৃত. আজিজার রহমানের ছেলে নজরুল ইসলাম (৪৩), খাগড়াছড়ির গুইমারা থানার হাফছাড় এলাকার বাদশা মিয়ার ছেলে মো. ফিরোজ (৩৬) এবং গাজীপুরের কাপাসিয়া থানার পাবুর এলাকার মৃত. হাফিজের ছেলে মো. দুলাল (৪৫)। গ্রেপ্তারকৃত আসামীদের তিন দিনের রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আজ রোববার আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে পাওয়া তথ্যে ভিত্তিতে মৃত. রমজান আলীর ছিনতাইকৃত অটোরিকশাটিও গত শুক্রবার রংপুর থেকে উদ্ধার করা হয়েছে।

মামলার আরজি ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার কামারপুকুর ইউনিয়নের আল্লাদিপাড়ার মৃত. হবিবর রহমানের ছেলে রমজান আলী। পেশায় তিনি একজন ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা চালক। ঘটনার দিন গত ৩১ আগষ্ট সকাল ছয়টায় তিনি প্রতিদিনের মতো অটোরিকশা চালানোর উদ্দেশ্যে কামারপুকুর নতুন আবাসনে থাকা দ্বিতীয় স্ত্রীর বাড়ি থেকে বের হয়ে আসেন। এরপর কামারপুকুর বাজারের জনৈক আবেদ আলীর (গুরু) রিকশা গ্যারেজ থেকে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা নিয়ে বের হন। পরবর্তীতে সকাল ১০টায় অজ্ঞান অবস্থায় জনৈক ব্যক্তির রিকশাযোগে নিজ বাড়িতে ফিরে আসেন। এরপর পরিবারের লোকজন তাকে সৈয়দপুর ১০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে নিয়ে যান। পরে সেখানে তাঁর অবস্থা আশঙ্কজনক হওয়ায় দ্রুত তাকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পরদিন ১ সেপ্টেম্বর ভোর সোয়া পাঁচটায় মৃত্যু ঘটে তাঁর। এ ঘটনায় নিহতের প্রথম স্ত্রী মোছা. শরিফা বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামীদের বিরুদ্ধে গত ১ সেপ্টেম্বর সৈয়দপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

এ মামলাটি তদন্তভার দেয়া হয় সৈয়দপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আহমদ উল্লাহ হক প্রধানকে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ক্লুলেস হত্যা মামলাটির তদন্তে নামেন। তিনি (তদন্তকারী কর্মকর্তা) দুই মাসের বেশি সময় ধরে সৈয়দপুর শহরের ও পার্শ্ববতী রংপুরের বদরগঞ্জ থানা এলাকার অনেক স্থানের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ পর্যালোচনা করেন। সেই সঙ্গে মোবাইল ট্র্যাঙ্কিংয়ের মাধ্যমে অটোরিকশা চালক রমজান আলীকে চেতনানাশক খাইয়ে অজ্ঞান করে তাঁর অটোরিকশাটি নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের চিহ্নিত করতে সক্ষম হন। সেই সঙ্গে নিশ্চিত হন তাদের অবস্থানও। এরপর তাদের গ্রেপ্তারের তৎপরতা শুরু করেন সৈযদপুর পুলিশ। পরবর্তীতে মোবাইল ট্র্যাঙ্কিয়ের মাধ্যমে তাদের ঢাকার অবস্থান নিশ্চিত হয়ে গত ২৯ অক্টোবর সৈয়দপুর থানার উপপরিদর্শক আহমত উল্লাহ হক প্রধানের নেতৃত্বে উপপরিদর্শক আহসান হাবিব, সহকারী উপপরিদর্শক আবু তালেবকে নিয়ে ঢাকায় যান। এরপর ঢাকার উত্তরা এলাকা থেকে রমজান আলীকে চেতনানাশক খাইয়ে অটোরিকশা নিয়ে পালিয়ে যাওয়া ও হত্যার ঘটনায় জড়িত তিন আসামীকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সৈয়দপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আহমদ উল্লাহ হক প্রধান বলেন, এ মামলাটি তদন্ত করতে গিয়ে গ্রেপ্তারকৃত আসামীরা সৈয়দপুর থেকে এর আগেও একাধিক অটোরিকশা ছিনতাইয়ের সঙ্গে জড়িত ছিল বলে সত্যতা মিলেছে।

সৈয়দপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাইফুল ইসলাম ক্লুলেস মামলার তিন আসামীকে গ্রেপ্তার এবং ছিনতাইকৃত ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা উদ্ধারের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Comments are closed.

আর্কাইভ