• শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০৩:৩৩ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
বেঞ্চ ও বারের সুসম্পর্কের মধ্য দিয়ে বিচার ব্যবস্থা সমৃদ্ধ হয়- নীলফামারীতে প্রধান বিচারপতি সৈয়দপুর বিজ্ঞান কলেজ চত্ত্বর থেকে কিশোরের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার  নীলফামারী শহরে অগ্নিকান্ডে ৫ দোকান পুড়ে ছাই জলঢাকায় মিন্টু, কিশোরগঞ্জে রশিদুল, সৈয়দপুরে রিয়াদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত বিএনপি-জামায়াতের ষড়যন্ত্রের বিষদাত ভেঙে দেওয়া হবে: নানক সৈয়দপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভজে পুত্রের জয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য মাউশির ৯ নির্দেশনা ভোটের আগেই জামিন পেলেন চেয়ারম্যান প্রার্থী ফুলবাড়ীতে ৪৮ রোগী পেল ২৪ লাখ টাকার চিকিৎসা সহায়তার চেক ফুলবাড়ীতে চারটি চোরাই গরু উদ্ধার, গ্রেফতার তিন

সৈয়দপুরে আসামি গ্রেপ্তারে গড়িমসি, পুলিশের বিরুদ্ধে পক্ষপাতের অভিযোগ

সিসি নিউজ।। নীলফামারীর সৈয়দপুরে যুবদল নেতার নেতৃত্বে আওয়ামী মৎসজীবি লীগ নেতার বাড়ি-ঘর ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনায় মামলা দায়ে রের প্রায় ২১ দিন অতিবাহিত হয়েছে। কিন্তু কোনো আসামীকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। বরং পুলিশ এ ঘটনায় দায়ের করা মামলার তদন্তে গড়িমসি ও পক্ষপাতমূলক আচরণ করছে বলে অভিযোগ ওঠেছে।

আজ সোমবার দুপুরে শহরের মুন্সিপাড়ায় নিজ বাসভবনে সংবাদ সম্মেলন করে এ অভিযোগ করেন মামলার বাদী ও ভুক্তভোগী নীলফামারী জেলা মৎসজীবিলীগের সাধারণ সম্পাদক মো: জুয়েল সরকার।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, আমারা বাড়ি করছি। আমার প্রতিবেশী ও জেলা যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক ফাইয়াজুল হক সাজু আমার বাড়ির একশতক জমি নিজের বলে দাবি করে। এ জন্য আমার পরিবারের কাছে ২০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে আসছিল। চাঁদা না দেওয়ায় গত ৯ মার্চ সাজুর নেতৃত্বে শতাধিক দুর্বৃত্ত দেশীয় অস্ত্রসস্ত্রে সজ্জিত হয়ে আমার বাড়িঘর ভাঙচুর ও লুটপাট করে। তারা আমার বৃদ্ধ মা-বাবাকে হত্যার হুমকি দেয়।

এদিন দলীয় কাজে নীলফামারী শহরে অবস্থান করছিল আমি। পরে এসে ঘটনা দেখে ৬ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ৭০ ব্যক্তিকে আসামী করে থানায় মামলা করতে গেলেও পুলিশ প্রথমে মামলা নিতে অস্বীকৃতি জানায়। এর দুইদিন পর মামলা নেয়। তবে মামলা দায়েরর প্রায় ২১ দিন অতিবাহিত হলেও আসামীদের গ্রেপ্তারে পুলিশের কোনো তৎপরতা নেই। এমনি ঘটনাস্থলে তদন্তেও আসেননি তদন্ত কর্মকর্তা। এ নিয়ে আমরা আতঙ্কিত। আসামীদের দ্রুত গ্রেপ্তার করা না হলে মানবন্ধনসহ নানা কর্মসূচীর হুশিয়ারি দেওয়া হয় সংবাদ সম্মেলনে।

সংবাদ সম্মলনে উপস্থিত ছিলেন জুয়েল সরকারের বাবা ও রেলওয়ে অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কামাল আহমেদ, মা ও শিক্ষক রওশন আরা, বীরমুক্তিযোদ্ধা এ.কে এম ফজলুল হক, জেলা পরষিদের সদস্য মিজানুরহমান লিটনসহ মৎসজীবি লীগের জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ। জুয়েলের বাবা কামাল আহমেদও সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। কথা বলতে বলতে এক সময় কেদে ফেলেন তিনি।

সৈয়দপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহা আলম বলেন,মামলায় যে ৬ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে তারা মহামান্য হাইকোর্ট থেকে জামিন ইতিমধ্যে নিয়ে এসেছেন। অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারে পুলিশ চেষ্টা চালাচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Comments are closed.

আর্কাইভ