• শনিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২৩, ০৫:৫০ পূর্বাহ্ন |

পায়ে শিকল বেঁধে হাফেজি মাদ্রাসায় পাঠদান!

111সিসি নিউজ: শিকল বাঁধা দাসপ্রথা বিলুপ্ত হয়নি এখনও। অবিশ্বাস্য হলেও এই ঘটনা এখন হরহামেশা দেখা যাচ্ছে শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলায়। সেখানে এক হাফেজিয়া মাদ্রাসার শিক্ষকরা শিশু-কিশোর বয়সী ছাত্রদের সাথে এই অমানবিক আচরণ করে যাচ্ছে প্রকাশ্যেই। প্রশাসন এখনও নেই নি কোন ব্যবস্থা।

জানা যায়, শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার ছয়গাঁও গ্রামের ছয়গাঁও জামিয়া মোল্যা আ. আজিজ নুরানি হাফিজিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানা। এ মাদ্রাসাটিতে শিশু ছাত্রের সংখ্যা ৪০ জন। মাদ্রাসার পড়ার চাপে প্রায়ই এখান থেকে ছাত্ররা পালিয়ে যায়, এ অভিযোগ মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের। এর পরিপ্রেক্ষিতে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ কিছু দিন ধরে ছাত্ররা যাতে পালাতে না পারে এ জন্য তাদের পায়ে শিকল বেঁধে আটকে রাখছে। শুধু তাই নয়, শিকল বাঁধা অবস্থায় তাদের চলাফেরা করতে হয়।

এ জন্য মাদ্রাসার অন্য ছাত্রকে পাহারাদার হিসেবেও রাখা হয়। এ প্রসঙ্গে প্রতিষ্ঠানটির প্রধান শিক্ষক হাবিবুল্লাহ বাহারি বলেন, অনেক শিশু লেখাপড়ায় অমনোযোগী, সুযোগ পেলেই তারা মাদ্রাসা থেকে পালিয়ে যায়। তিনি দাবি করেন, অভিভাবকদের অনুরোধে তাদের পায়ে শিকল পরিয়ে রাখা হয়েছে।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার শরীয়তপুর জেলা শাখার সভাপতি অ্যাডভোকেট রওশন আরা বলেন, শিশুদের যেভাবে শিকল পরিয়ে রাখা হয়েছে, তা পুরো মানবাধিকার লঙ্ঘন। এ ব্যাপারে তারা দ্রুত আইনি পদক্ষেপ নেবেন। একই সঙ্গে প্রশাসনকে এই শিশুদের রক্ষা করতে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি।
এলাকাবাসী মাদ্রাসা শিক্ষায় এ ধরনের অমানবিক আচরনে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আর্কাইভ