• শুক্রবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২৩, ০৭:৪৭ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
সৈয়দপুরে প্রাথমিকে নিয়োগ পরীক্ষায় ডিভাইস ব্যবহার করায় আটক-৩ নীলফামারীতে গণজাগরণের সাংস্কৃতিক উৎসব অনুষ্ঠিত ফুলবাড়ীতে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের দায়ে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা কুয়াশা কেটে যাওয়ায় সাড়ে ৬ ঘন্টা পর সৈয়দপুর বিমানবন্দরে ফ্লাইট চলাচল স্বাভাবিক ঘন কুয়াশার কারনে সৈয়দপুর বিমানবন্দরে ফ্লাইট উঠানামা ব্যাহত সৈয়দপুর লায়ন্স স্কুল এন্ড কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্ব পেলেন মসিউর রহমান খানসামা উপজেলায় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাপসুল পাচ্ছে ২৩ হাজার শিশু প্রধানমন্ত্রী নিজের নির্বাচনী এলাকা যাচ্ছেন আগামীকাল বাংলাদেশ সীড এসোসিয়েশন এর নির্বাহী সদস্য হলেন ডোমারের আনোয়ার হোসেন কাভার্ড ভ্যানে আগুন: ছাত্রদল নেতাসহ গ্রেপ্তার ৩

কেপিপিএলকে আদালতে ব্যাখ্যা দিতে হবে

KKসিসিনিউজ : খুলনা প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিং লিমিটেডের (কেপিপিএল) বিরুদ্ধে গণমাধ্যমে যেসব অভিযোগ এসেছে তার ব্যাখ্যা কোম্পানিটিকে আদালতে দিতে হবে। কোম্পানিটির বিরুদ্ধে পুঁজিবাজার থেকে অর্থ সংগ্রহের প্রস্তাবে লাভ ফুলিয়ে-ফাঁপিয়ে দেখানোসহ নানাবিদ অভিযোগ উঠেছে। আগামী ২৭ মের মধ্যে এই ব্যাখ্যা দিতে আজ বুধবার বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার ও বিচারপতি খুরশীদ আলম সরকারের হাইকোর্ট বেঞ্চ কেপিপিএলকে আদেশ দিয়েছেন। কেপিপিএলের বিরুদ্ধে রিট আবেদনে গত ৭ মে আদালতের প্রাথমিক আদেশেও এই ধরনের নির্দেশনা ছিল, যা প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালককে বাস্তবায়নে এক সপ্তাহ সময় দেয়া হয় । ওই নির্দেশনা বাস্তবায়ন না করে তার পক্ষে আইনজীবী এমকে রহমান সময় চান। এরপর নতুন করে এই আদেশ দেয়া হয় বলে রিট আবেদনকারীর অন্যতম আইনজীবী কাজী মো. আরিফুর রহমান জানিয়েছেন।
এদিকে রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি করে গত ৭ মে হাইকোর্টের এই বেঞ্চ ওই কোম্পানির আইপিও সংক্রান্ত সব কার্যক্রম স্থগিতের নির্দেশ দিয়েছিল। পরদিন এই অংশটি আপিল বিভাগ স্থগিত করে দেয়। হাইকোর্ট ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের থেকে খুলনা প্রিন্টিং অ্যান্ড প্যাকেজিং লিমিটেডের আইপিও আবেদন সংগ্রহে পরবর্তী কার্যক্রম বন্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণে কেন নির্দেশনা দেয়া হবে না রুলে তা জানাতে বলে। অর্থ সচিব, এসইসির চেয়ারম্যান, খুলনা প্রিন্টিং অ্যান্ড প্যাকেজিং লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক, সোনালী ব্যাংকের সহযোগী প্রতিষ্ঠান সোনালী ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডের ইস্যু ব্যবস্থাপককে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।
অন্যদিকে কেপিপিএল তাদের আইপিওর ঘোষণাপত্রে কোম্পানির ব্যাপক মুনাফা হওয়ার কথা তুলে ধরে। কিন্তু ওই দাবির সাথে কোম্পানির আকার ও বাজারের বাস্তবতার কোনো মিল পাওয়া যায়নি। কেপিপিএলও এ ব্যাপারে কোনো সদুত্তর দিচ্ছে না। এ বিষয়ে গণমাধ্যমে খবর প্রকাশ হলে তার ওপর ভিত্তি করে হাইকোর্টে একটি রিট আবেদন হয়। পাশাপাশি সন্দেহ তৈরি হয় এরকম কোনো তথ্য প্রকাশ না করার বিধান থাকলেও প্রাথমিক গণপ্রস্তাব বা আইপিও বিবরণীতে মিথ্যা তথ্য দিয়ে কেপিপিএলের ৪০ কোটি টাকা তুলে নেয়া ঠেকাতে জনস্বার্থে এই রিট আবেদন করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মো. রায়হানুল মোস্তফা। আদালতে আবেদনকারীর পক্ষে শুনানি করেন মো. জিয়াউর রহমান ও কাজী মো. আরিফুর রহমান।
আদালতের প্রাথমিক আদেশের দিন আইনজীবী কাজী মো. আরিফুর রহমান বলেন, আইপিওর ৪০ কোটি টাকা তুলতে প্রকাশিত কোম্পানিটির বিবরণীপত্র বা প্রসপেক্টাসে মিথ্যা তথ্য দেয়া হয়েছে। এখানে কেন্দ্রীয় কার্যালয় ও ৪ পরিচালকের স্থায়ী নিবাসের একটি ঠিকানা দেয়া হয়েছে, যা মূলত একটি আবাসিক হোটেল।
পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, চলতি বছরের ৪ মার্চ বাজার থেকে ৪০ কোটি টাকার পুঁজি সংগ্রহের জন্য ৪ কোটি শেয়ার ছাড়তে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) কাছ থেকে কেপিপিএল অনুমতি পায়। কিন্তু তাদের আইপিওর ঘোষণাপত্রে দেখা যায়, ২০০৯-১০ অর্থবছরে কেপিপিএলের আয় ছিল ৩৪ কোটি টাকা। তবে পরের বছরেই মুনাফা আকাশচুম্বী হয়ে প্রায় আড়াইশ ভাগ বেড়ে ১১৯ কোটি টাকা হয়। কেপিপিএলের দাবি, তাদের প্যাকেজিং পণ্যের বিক্রি বেড়ে ২শ কোটি টাকা হয়েছে। কিন্তু তাদের এই দাবির সাথে ভিন্নমত পোষণ করেন একই খাতের ব্যবসায়ীরা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আর্কাইভ