• শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০৪:০৫ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
বেঞ্চ ও বারের সুসম্পর্কের মধ্য দিয়ে বিচার ব্যবস্থা সমৃদ্ধ হয়- নীলফামারীতে প্রধান বিচারপতি সৈয়দপুর বিজ্ঞান কলেজ চত্ত্বর থেকে কিশোরের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার  নীলফামারী শহরে অগ্নিকান্ডে ৫ দোকান পুড়ে ছাই জলঢাকায় মিন্টু, কিশোরগঞ্জে রশিদুল, সৈয়দপুরে রিয়াদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত বিএনপি-জামায়াতের ষড়যন্ত্রের বিষদাত ভেঙে দেওয়া হবে: নানক সৈয়দপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভজে পুত্রের জয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য মাউশির ৯ নির্দেশনা ভোটের আগেই জামিন পেলেন চেয়ারম্যান প্রার্থী ফুলবাড়ীতে ৪৮ রোগী পেল ২৪ লাখ টাকার চিকিৎসা সহায়তার চেক ফুলবাড়ীতে চারটি চোরাই গরু উদ্ধার, গ্রেফতার তিন

ঝড়ে পরে রেল, উল্টায় না বাস

nurujjaman-11নুরুজ্জামান জোয়ারদার : গত এপ্রিল মাসের শেষে বঙ্গবন্ধু যমুনা সেতুর উপর দিয়ে বয়ে যায় প্রচন্ড কালবৈশাখী ঝড়। এতে রেলের নয়টি বগি যাত্রীসহ লাইনচ্যুত হয়ে নদীর দিকে হেলে না পড়ে বাস লাইনের পথের পাশে ঝুঁকে পড়লো। এদেশের ষোল কোটি মানুষকে তা বিশ্বাস করতে হল। মিডিয়াতে এমন বার্তা ব্যাপক ভাবে প্রচার করা হলঅ ভাগ্যিস নদীর দিকে কাত হয়ে যদি যমুনাতে গাড়ী নয়টি পড়ে যেতো তবে কত রেলযাত্রীর সলিল সমাধি হত ভাবলে ভয়ানক এক চিত্র চোখের সামনে ভেসে উঠে। ইতিমধ্যে কোনো এক বিশেষজ্ঞ বলেছেন: রেললাইন এমনভাবে বসানো আছে গাড়ী নদীর দিকে ঝড়ে উল্টাবে না। কি চমৎকার যুক্তি, মেনে নিল সায়েদীকে চাঁদে দেখা এ দেশের মানুষ। আমরা জানি বিশেষজ্ঞদের অতীত ঐতিহাসিক কর্মকান্ড। যমুনা সেতুতে তারা রেল সংযোগ দিতে অস্বীকার করেছিল বলে ১৯৯৮ সালে রেল কর্মীরা জনতার সাথে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন শুরু করেন। ফলে সেতুতে রেল সংযোগ দিতে বাধ্য হয় সরকার। কিন্তু দেখা গেল সেতুর মাঝখানে রেললাইন না দিয়ে একেবারে কিনারের দিকে পশ্চিম প্রান্তে রেলপথ বসানো হল। রেলের মত ভারী পরিবহন এক প্রান্তে, আর বাস চলাচল মাঝপথে, এটা যে কি ভুল তা ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ে ক্যাল্টিলিভার লোড ক্যালকুলেট না করেও একজন ঘরামীও বুঝতে পারেন। শুধুমাত্র সংযোগ সড়কে একটা ফ্লাইওভার করলেই সেতুর মাঝখান দিয়ে বেশ দ্রুতই রেল পারাপার সম্ভব হত। তখন অপেক্ষকিৃত কম ওজনের সড়ক পরিবহন চলতো রেলের দু’পাশ দিয়ে। এখন সেতুতে রেল সংযোগ দিয়ে প্রায় পাঁচ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করতে রেলের লাগে আঠারো মিনিট। অথচ একশত বছর আগের পাকশীর হার্ডিঞ্জব্রীজে কত দ্রুত রেল পারাপার হচ্ছে। সেই শতবর্ষ আগের প্রযুক্তি বিদ্যা যেখানে ব্রীজের পিলারগুলি চুনসুরকি আর ইটের গাথুনিতে নির্মিত। অথচ অত্যাধুনিক প্রযুক্তিতে নদীর ভূগর্ভ থেকে পাইলিং দিয়ে ষ্টিলের পরিমিত রডের খাঁচায় উন্নত মানের সিমেন্ট দিয়ে ঢালাই করা পিলারের উপর কংক্রিটের বঙ্গবন্ধু সেতুতে স্বাভাবিক গতিতে রেল চলা নিষেধ। হায়রে অত্যাধুনিক নির্মাণ শৈলী।
এই সেতু চালু করার পর আবার বিশেষজ্ঞদের পানিঘোলা করার শুরু হয়ে গেল গ্যাস লাইন পারাপার নিয়ে। গ্যাস লাইন সেতুতে সংযোক্ত করলে দূর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা আছে সবলে মত প্রকাশ করলেন তাঁরা। প্রায় বছর দেড়েক টানাহেচড়ার পরে গ্যাস লাইন সংযুক্ত হয় এই সেতুতে। গ্যাস লাইনের জন্য পৃথক পারাপার ব্যবস্থা নির্মাণ করতে আরো হাজার কোটি টাকা খরচ হত তাতে সন্দেহ নেই। এতে বুঝা যাচ্ছে যত ব্যয় বেশী হয় তাই চান বিশেষজ্ঞদের দল। পৃথক গ্যাস পারাপার, পৃথক রেল পারাপার পৃথক গ্রীড লাইন পারাপার হলে বাজেট বাড়বে। নির্মাণে যত ব্যয় তত পকেটভারী। টাকা দেবে গৌরীসেন-অর্থ্যাৎ সরকার। ঝড়ের কথায় ফিরে আসি।
একটি রেলের বগীর ওজন মিটার গেজ হলেও ৩৪ টন, ব্রড গেজ হলে ৪৪ টন। এর মধ্যে যাত্রী ও মালামালসহ আরো দশটন হবে। তাতে ব্রীজে হেলে পড়া একটি বগীর ওজন প্রায় পঞ্চাশ টন। আর একটি বাস ও ট্রাক যাত্রী মালামালসহ পনের-বিশ টনের মত। অথচ ঐ দিন ঝড়ে ব্রীজে বা রাস্তায় কোথাও কোনো বাস ট্রাক উল্টে যায়নি, প্রায় পঞ্চাশ টন ওজনের বগি লাইনচ্যুত হল। হায়রে বাংলাদেশের বিশেষজ্ঞ, আর ষোল কোটি মানুষ আর মিডিয়া? নৈতিকতার বিপর্যয়ের ফলে প্রযুক্তি ও বিজ্ঞান এদেশে বিপথ গামী। তাই ফলমুল মাছ মাংসতে বিষ খেতে হচ্ছে। ডিজিটাল পদ্ধতিতে তথ্য সংগ্রহ করে খুন, গুম, অপহরণ, ছিনতাই ডাকাতি হচ্ছে। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির কারণে উন্নয়ন ঘটেছে রাস্তাঘাট, কল-কারখানা, ইমরাত ও যোগাযোগের। কিন্তু নৈতিক উন্নয়ন তো একটুও ঘটেনি, বরং অবনতি ঘটেছে। ফলে দূর্নীতির পাঁকে ডুবে যাচ্ছে এদেশের মানুষ। বিশেষজ্ঞরা ও ধোঁকাবাজি করছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আর্কাইভ