• শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ০৯:৫০ অপরাহ্ন |

চিলমারীতে ৪০ হাজার পরিবার পানিবন্দি

chilmari-5-9-15হাবিবুর রহমান, চিলমারী : বন্যার পানি নেমে যেতে না যেতেই আবারো টানা বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও গত ২৪ঘন্টায় চিলমারী পয়েন্টে ব্রহ্মপুত্রের পানি ২১ সেঃ মিঃ ও তিস্তার পানি ৫ সেঃমিঃ বৃদ্ধির পাওয়ায় চিলমারী উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের নুতুন নুতুন পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। ১’সপ্তাহের ব্যবধানে দ্বিতীয় দফায় বন্যায় উপজেলার চিলমারী, থানাহাট, রানীগঞ্জ, নয়ারহাট, অষ্টমীর চর, রমনা মডেল ইউনিয়নের প্রায় ৪০ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। ঘর ছাড়া হয়ে পড়েছে প্রায় ২০ হাজার মানুষ। নতুন করে আবারো পানিবন্দি মানুষের মাঝে দেখা দিয়েছে বিশুদ্ধ পানি ও খাদ্যের চরম সংকট। এতে করে আবারো চরম দূর্ভোগে পড়েছে সদ্য বন্যার্দুগত ঘরে ফেরা মানুষ গুলো। মানুষের মাঝে সৃষ্টি হয়েছে হাহাকার অনেকে আবারো ছুটছে নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে। তিস্তা ও ব্রহ্মপুত্রে মাঝ খানে এই উপজেলাটি পড়ায় দু’নদীর পানির তোড়ে আরো বিপদে পড়েছে এই অঞ্চলের মানুষ।
জানা গেছে, হঠাৎ করে আবারো আকস্মিক এই বন্যায় তিস্তা ও ব্রহ্মপুত্রের তীরবর্তী চিলমারী উপজেলায় নদীর উপকূলবর্তী টোনগ্রাম, সোনারী পাড়া, ব্যাংমারা, গুরেতী পাড়া, চরপাত্রখাতা, কুষ্টারী, ডেমনার পাড়, মাছাবান্দা, পুটিমারী, রাজারভিটার, কাঁচকোল, মদন মহোন, দক্ষিন ওয়ারী, সরদারপাড়া, খেরুয়ারচর, দক্ষিন খেদাইমারী, উত্তর খেদাইমারী, উত্তর খাউরিয়া, দক্ষিন খাউরিয়া, শাখাহাতি, মনতোলা, বিশার পাড়া, গাজিরপাড়া, খোদ্দ বাঁশপাতারী, নালিতাখাতা সহ বিভিন্ন গ্রামের প্রায় ৪০ হাজার পরিবারের প্রায় লক্ষাধীক মানুষ পানিবান্দি হয়ে পড়ায় অসহায়ত্বে কাঁটছে তাদের জীবন। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় এসব গ্রাম ও পরিবারের প্রায় ২০ হাজার মানুষ ঘর ছাড়া হয়ে পড়েছে। বানভাসী মানুষেরা হাঁস-মুরগী, গরু-ছাগল নিয়ে পড়েছে বিপাকে। নলকুপ, গোচারনভুমি পানিতে প্লাবিত হওয়ায় গোখাদ্য ও বিশুদ্ধ পানির সঙ্গে দেখা দিয়েছে তীব্র খাদ্য সঙ্কট। হাঁড়িতে চাল থাকলেও শুকনো জায়গার অভাবে অনাহারে রয়েছেন অনেক পরিবার বলে জানা গেছে। শুধু তাই নয় পানি বন্দি এলাকার কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তলিয়ে যাওয়ায় এসব প্রতিষ্ঠাতে বর্তমানে পাঠদান বন্দ রয়েছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে পাত্রখাতা রিয়াজুল দাখিল মাদ্রাসা, মদন মহোন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, কেচি রাস্তা ও অবদা বাঁেধ আশ্রয় নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে পানিবন্দি মানুষজন। পানিবৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় গ্রাম অঞ্চলের রাস্তাঘাট ডুবে যাওয়ায় এঅঞ্চলের মানুষজনের যাতায়াতে চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। এদিকে পাউবো সূত্রে জানা গেছে চিলমারী পয়েন্টে ব্রহ্মপুত্রের পানি বিপদ সীমার ৩৫ সেঃ মিঃ উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এবং পানি এই ভাবে বৃদ্ধি অব্যাহত থাকলে উপজেলা সদরও বন্যার পানিতে প্লাবিত হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ