• শুক্রবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২৩, ০৭:২৪ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
সৈয়দপুরে প্রাথমিকে নিয়োগ পরীক্ষায় ডিভাইস ব্যবহার করায় আটক-৩ নীলফামারীতে গণজাগরণের সাংস্কৃতিক উৎসব অনুষ্ঠিত ফুলবাড়ীতে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের দায়ে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা কুয়াশা কেটে যাওয়ায় সাড়ে ৬ ঘন্টা পর সৈয়দপুর বিমানবন্দরে ফ্লাইট চলাচল স্বাভাবিক ঘন কুয়াশার কারনে সৈয়দপুর বিমানবন্দরে ফ্লাইট উঠানামা ব্যাহত সৈয়দপুর লায়ন্স স্কুল এন্ড কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্ব পেলেন মসিউর রহমান খানসামা উপজেলায় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাপসুল পাচ্ছে ২৩ হাজার শিশু প্রধানমন্ত্রী নিজের নির্বাচনী এলাকা যাচ্ছেন আগামীকাল বাংলাদেশ সীড এসোসিয়েশন এর নির্বাহী সদস্য হলেন ডোমারের আনোয়ার হোসেন কাভার্ড ভ্যানে আগুন: ছাত্রদল নেতাসহ গ্রেপ্তার ৩

জয়কে নিয়ে প্রতিবেদন : বিবিসির দুঃখ প্রকাশ

জয়সিসি ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রীর ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়কে নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশের ক্ষেত্রে যথাযথভাবে সম্পাদকীয় নীতিমালা অনুসরণ না করার বিষয়টি স্বীকার করে দুঃখ প্রকাশ করেছে বিবিসি।

বাংলাদেশের একটি অনলাইন পত্রিকাকে ইমেইলে এক বিবৃতিতে বিবিসি গ্লোবাল নিউজের করপোরেট কমিউনিকেশন্স ম্যানেজার পল রাসমুসেন জানান, প্রধানমন্ত্রীর ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়ের বক্তব্য জানার আগেই ইসরায়েলি রাজনীতিবিদ মেন্দি এন সাফাদির কথায় দুজনের বৈঠকের খবর প্রকাশ করা বিবিসির সম্পাদকীয় নীতিমালা অনুযায়ী উচিৎ হয়নি। অনলাইন পত্রিকাটি বুধবার এ খবর প্রকাশ করে। পল রাসমুসেন আরো জানান, ‘সজীব ওয়াজেদের বক্তব্য পাওয়ার আগেই ওই প্রতিবেদন প্রকাশ করার জন্য আমরা দুঃখিত, কেননা, এ ধরনের ক্ষেত্রে সাধারণত বিবিসির ওই নিয়মই অনুসরণ করার কথা।’

তিনি এ ঘটনার আলোকে সম্পাদকীয় নীতিমালা অনুসরণের বিষয়টি জোরদার করা হবে বলেও বিবৃতিতে উল্লেখ করেছেন।

ইসরায়েলের ক্ষমতাসীন লিকুদ পার্টির সদস্য মেন্দি এন সাফাদির সঙ্গে বৈঠকের ছবি গণমাধ্যমে আসার পর বিএনপি নেতা আসলাম চৌধুরীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। সরকার উৎখাতের ষড়যন্ত্রের অভিযোগে তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা করা হয়।

এ নিয়ে আলোচনার মধ্যেই সাফাদির একটি সাক্ষাৎকার প্রকাশ করে বিবিসি বাংলা অনলাইন। সেখানে বলা হয়, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর ছেলে জয়ের সঙ্গে ওয়াশিংটন ডিসিতে সাক্ষাৎ হয়েছে বলে সাফাদি দাবি করেছেন।

ওই দাবি নাকচ করে ফেসবুকে এক পোস্টে জয় বলেন, তার সঙ্গে সাফাদির কখনও দেখাই হয়নি।

এরপর বাংলাদেশে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকেও বিবিসির খবরকে ‘ভিত্তিহীন’ বলা হয়। সেই সঙ্গে ভবিষ্যতে এ ধরনের খবর পরিবেশনে সতর্ক হওয়ার অনুরোধ জানায় আওয়ামী লীগ।

রাসমুসেন বলেন, মেন্দি সাফাদি যখন দাবি করলেন যে তিনি ওয়াশিংটনে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীপুত্রের সঙ্গে বৈঠক করেছেন তখন বিবিসি অবশ্যই সজীব ওয়াজেদের সঙ্গে কথা বলে তার বক্তব্য জানার চেষ্টা করেছে। কিন্তু বিভিন্ন মাধ্যমে বার বার চেষ্টা করেও সেই চেষ্টা বিফল হয়েছে। জয় যখন ফেসবুকে সাফাদির দাবি অস্বীকার করলেন তখন বিবিসি ওয়েবসাইট ও রেডিওতে তা প্রতিবেদন আকারে প্রকাশ করেছে। একইভাবে আওয়ামী লীগ যখন প্রতিবাদপত্র দিয়েছে তখনও বিবিসি সংবাদ আকারে তা প্রকাশ করেছে।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আর্কাইভ