• শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ১০:৩৭ অপরাহ্ন |

সৈয়দপুরে বাড়ছে কলকারখানা, কমছে আবাদি জমি

সিসি নিউজ।। নীলফামারীতে বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশনে (বিসিক) শিল্প স্থাপনের জায়গা না থাকায় কৃষি জমিতে গড়ে উঠছে শিল্প কারখানা। ফলে জেলায় যত্রতত্র অপরিকল্পিতভাবে গড়ে উঠছে ক্ষুদ্র, ছোট, মাঝারি ও ভারী শিল্প কারখানা। এতে একদিকে যেমন বায়ু দূষণ হচ্ছে অন্যদিকে কমছে আবাদি জমি।

অপরদিকে বগুড়া-রংপুর-সৈয়দপুর গ্যাস সঞ্চালন পাইপ লাইন নির্মাণ প্রকল্পের কাজ প্রায় সম্পন্ন। আগামী জুনে উত্তরাঞ্চলের মানুষ গ্যাস পাচ্ছে-পেট্টোবাংলার এমন ঘোষণায় দেশের শিল্প উদ্যোক্তারা এ অঞ্চলে আবাদি জমি ক্রয় করে গড়ে তুলছে শিল্প কারখানা।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সূত্র মতে, নীলফামারী উত্তর জনপদের কৃষি নির্ভর সম্ভাবনাময় একটি জেলা। এ জেলার মোট আবাদী জমির পরিমান ১ লাখ ২৪ হাজার ৯২২ হেক্টর। এখানকার অধিকাংশ জমি তিন ফসলী। রয়েছে ৫৫০ হেক্টর চার ফসলি জমিও। বর্তমানে শিল্প কারখানা প্রতিষ্ঠায় এগিয়ে আসছে শিল্প উদ্যোক্তারা। কিন্তু জেলার একমাত্র বিসিক শিল্প নগরীতে জায়গা না থাকায় বাধ্য হয়ে কৃষি জমিতে কারখানা গড়ে তুলছে উদ্যোক্তারা। এতে কমে যাচ্ছে জেলার আবাদি জমি।

কৃষি বিভাগের এক পরিসংখ্যানে জানা গেছে, জেলার সৈয়দপুর উপজেলায় শিল্প কারখানা ও আবাসন গড়ে ওঠায় গত ৫ বছরে আবাদি জমির পরিমান কমেছে ২০০ হেক্টর। বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশনের প্রাপ্ত তথ্য মতে, নীলফামারী জেলাকে শিল্প কারখানায় সমৃদ্ধ করার লক্ষ্যে ১৯৯০ সালে সৈয়দপুরে ১১ একর জমি নিয়ে সৈয়দপুর বিসিক শিল্প নগরী গড়ে তোলা হয়। এটি প্রতিষ্ঠার দশ বছরের মধ্যেই ৯২টি প্লটের সবগুলোতেই শিল্প কারখানা গড়ে ওঠে। কিন্তু পরবর্তীতে নতুন নতুন শিল্প উদ্যোক্তারা শিল্প প্রতিষ্ঠায় এগিয়ে এলেও শিল্প নগরীতে তারা কোনো জায়গায় পাননি। ফলে জেলার বিভিন্ন আবাদি ও অনাবাদি জমিতে গড়ে তুলছে শিল্প প্রতিষ্ঠান।

নীলফামারী চেম্বার অব কমার্সের সহ-সভাপতি রাজ কুমার পোদ্দার জানান, দীর্ঘ কয়েক বছরে বিসিকের কর্মকর্তারা সৈয়দপুর বিসিক শিল্প নগরীর প্লট সম্প্রসারণের উদ্যোগ নেয়নি। তারপরও জেলার শিল্প উন্নয়ন থেমে নেই। জেলার বিভিন্ন উপজেলায় অপরিকল্পিতভাবে ফসলি জমিতে ছোট-বড় ও মাঝারি শিল্প কারখানা গড়ে উঠছে। এতে কৃষি জমি কমে যাচ্ছে। তিনি আরো বলেন, বিসিকে প্লট বরাদ্দ পেলে উদ্যোক্তারা অনেক সাশ্রয়ে গড়ে তুলতে পারে শিল্প-কারখানা। এর বাইরে অতিরিক্ত দামে জমি ক্রয়, যাতায়াত ব্যবস্থা, বিদ্যুত সরবরাহে অনেক পুঁজি খোয়াতে হয় উদ্যোক্তাদের।

বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন (বিসিক) নীলফামারীর উপ-ব্যবস্থাপক হুসনে আরা খাতুন বলেন, জেলার একমাত্র সৈয়দপুর বিসিক শিল্প নগরীর আশেপাশে কোন জায়গা না থাকায় সম্প্রসারণ করা সম্ভব নয়। তবে কৃষি জমির ক্ষতি যাতে না হয়, সে জন্য জেলা সদরে দ্রুত নতুন একটি বিসিক শিল্প নগরী স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সে মোতাবেক সংশ্লিষ্ট দপ্তরে ইতিমধ্যে জায়গা মনোনীত করে একটি প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছে।

নীলফামারী জেলা প্রশাসক খন্দকার ইয়াসির আরেফীন বলেন, বগুড়া থেকে পাইপ লাইনে নীলফামারীতে গ্যাস আসছে। তাই নীলফামারীতে দেশি বিদেশি উদ্যোক্তাদের সমাগম বাড়ছে। ইতিমধ্যে আবাদি জমিতে শিল্প কারখানা গড়ে উঠেছে- যা উদ্বেগজনক। তবে শিল্প নগরী স্থাপনে জেলার কৃষি জমিগুলো ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পাবে। সে লক্ষ্যে জেলা প্রশাসন কাজ করছে।

উল্লেখ্য যে, উত্তরা ইপিজেডের বাইরে জেলায় প্রায় তিন হাজারের বেশি ছোট-বড় ও মাঝারি শিল্প কারখানা রয়েছে। এসব কারখানায় লক্ষাধিক মানুষ কাজ করছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Comments are closed.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ