• শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০৪:১৬ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
বেঞ্চ ও বারের সুসম্পর্কের মধ্য দিয়ে বিচার ব্যবস্থা সমৃদ্ধ হয়- নীলফামারীতে প্রধান বিচারপতি সৈয়দপুর বিজ্ঞান কলেজ চত্ত্বর থেকে কিশোরের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার  নীলফামারী শহরে অগ্নিকান্ডে ৫ দোকান পুড়ে ছাই জলঢাকায় মিন্টু, কিশোরগঞ্জে রশিদুল, সৈয়দপুরে রিয়াদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত বিএনপি-জামায়াতের ষড়যন্ত্রের বিষদাত ভেঙে দেওয়া হবে: নানক সৈয়দপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভজে পুত্রের জয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য মাউশির ৯ নির্দেশনা ভোটের আগেই জামিন পেলেন চেয়ারম্যান প্রার্থী ফুলবাড়ীতে ৪৮ রোগী পেল ২৪ লাখ টাকার চিকিৎসা সহায়তার চেক ফুলবাড়ীতে চারটি চোরাই গরু উদ্ধার, গ্রেফতার তিন

তারাগঞ্জে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ধর্ষনের অভিযোগ, থানায় মামলা

সিসি নিউজ ডেস্ক।। রংপুরের তারাগঞ্জে বিয়ের প্রলোভনে তরুণীকে (১৯) ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে এক ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় আজ বৃহস্পতিবার থানায় মামলা করেছেন ভুক্তভোগী।
অভিযুক্ত আল ইবাদত হোসেন পাইলট উপজেলার সয়ার ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান।
মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, দুই বছর আগে একটি ফার্মেসিতে ওই তরুণীর সঙ্গে চেয়ারম্যান পাইলটের পরিচয় হয়। এরপর থেকে মোবাইলে বিভিন্ন সময় তাদের যোগযোগ হয়। একপর্যায়ে ওই তরুণীকে শারীরিক সম্পর্ক করার জন্য প্রস্তাব দেন। এতে তরুণী অস্বীকৃতি জানালে নগদ অর্থ, বিভিন্ন জিনিসপত্র ও বিয়ে করে সংসার করার প্রলোভন দেখায় চেয়ারম্যান। এরপর একাধিকবার বিভিন্ন স্থানে শারীরিক সম্পর্ক করে।
পরে বিয়ের জন্য চেয়ারম্যানকে চাপ দিলে তিনি টালবাহানা করতে থাকেন। একপর্যায়ে ওই তরুণী নিজেকে সরিয়ে নিতে চাইলে চেয়ারম্যান বিভিন্ন রকম হুমকি–ধামকি দেন। গত ১ অক্টোবর তরুণীকে বিয়ে করে রংপুরে ভাড়া বাসা রাখার আশ্বাস দিয়ে চেয়ারম্যান তাঁর তারাগঞ্জ শহরের কুর্শা আদর্শ স্কুলের সামনের বাসায় বিকেলে ডেকে আনেন। সেখানে রাত ২টার দিকে তরুণীকে ধর্ষণ করে এবং পরদিন সকালে ওই তরুণীকে তাঁর বাসা থেকে চলে যেতে বলে।
এ সময় তরুণী বিয়ের কথা বললে, চেয়ারম্যান বিভিন্ন টালবাহানা শুরু করে। এরপর ওই তরুণীর পরিবার ৩ অক্টোবর বিয়ে করতে বললে চেয়ারম্যান পাইলট বিয়ে করবে না বলে জানিয়ে দেন। এরপর আজ বৃহস্পতিবার তারাগঞ্জ থানায় পাইলটের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন ভুক্তভোগী।
অভিযোগ অস্বীকার করে ইউপি চেয়ারম্যান আল ইবাদত হোসেন পাইলট মোবাইলে বলেন, ‘আমি ষড়যন্ত্রের শিকার। আমার বিরুদ্ধে যড়যন্ত্র চলছে। আমার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষরা আমাকে সমাজে হেয়প্রতিপন্ন করার জন্য ওই নারীকে দিয়ে থানায় মিথ্যা মামলা করেছে।’
তারাগঞ্জ থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) জহুরুল হক বলেন, ‘তরুণী থানায় আসার সঙ্গে সঙ্গে মামলা নথিভুক্ত করা হয়েছে। বিষয়টি গুরুত্বসহকারে দেখা হচ্ছে। ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য তরুণীকে রংপুরে পাঠানো হয়েছে।’
উৎস: আজকের পত্রিকা


আপনার মতামত লিখুন :

Comments are closed.

আর্কাইভ