• শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৬:৪৬ পূর্বাহ্ন |

দিনাজপুর জেলা প্রশাসকের সই জাল করে প্রতারণা, সাবেক মেয়রকন্যাসহ গ্রেপ্তার ২

সিসি নিউজ ডেস্ক।। দিনাজপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে জেলা প্রশাসকের স্বাক্ষর জাল করে ভুয়া নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশকারী দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আজ সোমবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে দিনাজপুর পুলিশ সুপার কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে দুজনকে গ্রেপ্তারের বিষয়টি জানান দিনাজপুর জেলা পুলিশ সুপার শাহ ইফতেখার আহমেদ।

গ্রেপ্তারকৃত দুজন হলেন আনিকা তাসনিম সরকার তৃষা (৩২) ও আব্দুল মান্নান ওরফে মান্না (৩৫)। গতকাল রোববার দিবাগত রাতে তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়।

আনিকা তাসনিম সরকার তৃষা দিনাজপুর জেলার ফুলবাড়ী উপজেলার কাটাপাড়া গ্রামের ফুলবাড়ী পৌরসভার সাবেক মেয়র শাহজাহান আলী সরকার পুতুর মেয়ে। অপরজন প্রতারক আব্দুল মান্নান ওরফে মান্না নাটোর জেলা সদরের জালালাবাদ গ্রামের চাঁদ মিয়ার ছেলে। আব্দুল মান্নান চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা কারাগারের কারারক্ষী হিসেবে কর্মরত। তবে, তিনি তাঁর কর্মস্থলে অনিয়মিত বলে জানিয়েছেন পুলিশ সুপার।

সংবাদ সম্মেলনে জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) শাহ ইফতেখার আহমেদ জানান, প্রতারক আনিকা তাসনিম সরকার তৃষা জেলা প্রশাসনের পরিচয় ব্যবহার করে কৌশলের আশ্রয় নিয়ে ১৫ জানুয়ারি জাতীয় ‘দৈনিক মানবকণ্ঠ’ ও স্থানীয় ‘দৈনিক খবর একদিন’ পত্রিকায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, দিনাজপুরের ৫টি পদে ৫০ জন কর্মচারী নিয়োগের একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেন। নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিটি প্রকাশের পর তা জেলা প্রশাসকের দৃষ্টিগোচর হলে তিনি সংশ্লিষ্ট পত্রিকার প্রতিনিধিকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। পরে প্রতারণার বিষয়টি প্রশাসনের নজরে আসে। পরে দৈনিক মানবকন্ঠের প্রতিনিধি বাদী হয়ে কোতোয়ালি থানায় একটি প্রতারণা মামলা দায়ের করেন। গতকাল রোববার দিবাগত রাতে দিনাজপুর শহরের বালুবাড়ির ভাড়াবাসা থেকে প্রতারক আনিকা তাসনিম সরকার তৃষা ও তাঁর কথিত স্বামী আব্দুল মান্নান ওরফে মান্না গ্রেপ্তার করা হয়।

এসপি আরও জানান, গ্রেপ্তারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয় দিয়ে, বিভিন্ন লোককে সরকারি চাকরি পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলে স্বীকার করেছেন ওই নারী। এ জন্য তিনি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের নব নিয়োগ শাখা গেজেটের ক্রমিক নম্বর-১০৫ দিয়ে, ডিসি অফিসে চাকরি করেন বলে পরিচয় দিতেন। তিনি ইতিপূর্বে ঢাকার যাত্রাবাড়ী থানায় একটি প্রতারণার মামলায় গ্রেপ্তার হয়ে, কিছুদিন জেল খেটে বের হয়েছেন। এরপর আবারও প্রতারণার কাজ অব্যাহত রেখেছেন।

প্রতারক আনিকা তাসনিম সরকার তৃষাকে গ্রেপ্তারের সময় প্রতারণার কাজে ব্যবহার করা ভুয়া নিয়োগপত্রের মাধ্যমে যোগদানকৃত তিনটি খাম, প্রজ্ঞাপন, অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটরের নিয়োগপত্র ও নিয়োগপত্র আদেশের দুটি কপি, তিন পাতা নিয়োগপত্রের প্রজ্ঞাপন, ৬ পাতা নিকাহনামাসহ বিভিন্ন কাগজ, বিভিন্নজনের তিনটি ভোটার আইডি কার্ড, ৬টি সিম কার্ড, দুটি পাসপোর্ট, ৬টি মোবাইল ফোনসহ নগদ ৪০ হাজার টাকা জব্দ করা হয়। এ সময় একটি এফজেড মোটরসাইকেল রেজিস্ট্রেশন নম্বর নাটোর ল-১১-৫১১৩ জব্দ করা হয়েছে বলে জানান এ পুলিশ কর্মকর্তা।

পুলিশ সুপার শাহ ইফতেখার আহমেদ জানান, এই নারী প্রতারক দিনাজপুর পঞ্চগড়সহ দেশের বিভিন্ন স্থানের বেকারদের চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে ইতিমধ্যে কয়েক কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। তাঁর গ্রেপ্তারের সংবাদ ছড়িয়ে পড়ার খবরে প্রতারিত কয়েকজন পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে জড়ো হন।

এ সময় প্রতারণার শিকার দাবি করে শারমিন সুলতানা তনু নামের এক নারী জানান, তাঁর বাড়ি দিনাজপুর জেলার হাকিমপুর উপজেলায়। তাঁকে চাকরি দেওয়ার কথা বলে এবং ভুয়া নিয়োগপত্র প্রদান করে ১২ লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন এই নারী প্রতারক। পরে করোনাকালীন ভুয়া নিয়োগপত্র দিয়ে ব্যাংক অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে কয়েক মাসের বেতন দিয়ে আস্থা তৈরি করে তাঁর পরিবারের আরও একাধিক লোকের কাছ থেকে প্রায় কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়।

হাসিনা বানু নামে পঞ্চগড়ের এক নারী দাবি করে জানান, তাঁর মেয়েকে চাকরি দেওয়ার কথা বলে, তাঁর কাছ থেকেও ৭ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন ওই নারী।

এ বিষয়ে আনিকা তাসনিম সরকার তৃষার বাবা ফুলবাড়ী পৌরসভার সাবেক মেয়র শাহজাহান আলী সরকার পুতু বলেন, ‘তাঁর প্রতারণার বিষয়টি জানার পরে আমি বছর দেড়েক আগে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে তাঁর (তৃষা) সাথে আমার কোনো সম্পর্ক নেই মর্মে নিজ দায়িত্বে লেনদেনের জন্য ঘোষণা দিই। বর্তমানে তাঁর সাথে আমার কোনো প্রকার যোগাযোগ নেই।’

উৎস: আজকের পত্রিকা


আপনার মতামত লিখুন :

Comments are closed.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ